পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে ইসরায়েলি সেনাদের হাতে গত বছরের (২০২১) চেয়ে চলতি বছরের (২০২২) প্রথম ছয় মাসে বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৬ শতাংশ বেশি। 

জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনের বরাতে এ তথ্য জানায় ইসরায়েলের সংবাদমাধ্যম জেরুজালেম পোস্ট।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক স্থানীয় কার্যালয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৬০ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করা হয়েছে। গত বছরের একই সময়ে নিহত হয়েছিলেন ৪১ জন।

জাতিসংঘ বলছে, ২০২১ সালে ইসরায়েলের সেনাদের হাতে নিহত ফিলিস্তিনির সংখ্যা ছিল ৭৮। আর ২০২০ সালে ২৪ জন।

আন্তর্জাতিক আইন পরিপন্থি এ কাজ করার জন্য প্রতিবেদনে আইডিএফ, বর্ডার পুলিশ এবং পুলিশের মতো ইসরায়েলের নিরাপত্তা সংস্থাগুলোকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘বহু ঘটনায় দেখা গেছে, ইসরায়েলের সেনারা শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা না করে শুরু থেকেই প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার করেছে।’

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক স্থানীয় কার্যালয় একটি জটিল নিরাপত্তা পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করেছে যেখানে ইসরায়েলের অভ্যন্তরে মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে ১৮ ইসরায়েলি ফিলিস্তিনিদের হামলায় নিহত হয়েছেন। দুই দশক আগে শুরু হওয়া দ্বিতীয় ইন্তিফাদার পর কম সময়ে (মার্চ থেকে মে) এত ইসরায়েলি সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হননি।

প্রতিবেদনে ইসরায়েলি সেনাদের হাতে হত্যার শিকার ফিলিস্তিনিদের বিষয়ে নানা তথ্য দিয়ে এসব ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জানানো হয়েছে।

‘এসব সহিংসতার ক্ষেত্রে জবাবদিহিতার অভাব ব্যাপকভাবে রয়ে গেছে। এ ধরনের দায়মুক্তি নতুন করে আরও সহিংসতা ঘটানোর অনুমোদন দেয়’, যোগ করা হয় প্রতিবেদনে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক স্থানীয় কার্যালয় থেকে বলা হয়, এসব ঘটনায় জড়িত থাকার বিষয়ে যাদেরই সম্পৃক্ততা পাওয়া যাবে তাদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা উচিত। দায়মুক্তির এ সংস্কৃতির অবসান হওয়া উচিত এখনই।