মিসরের গিজা শহরের একটি চার্চের ভেতরে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৪৫ জন। গিজা মিসরের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এবং কায়রো থেকে নীল নদের বিপরীতে অবস্থিত। 

দুই নিরাপত্তা কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছে, গিজার ইমবাবা এলাকাস্থ খ্রিস্টান ধর্মের কপটিক আবু সিফিন নামের ওই চার্চে প্রার্থনার জন্য পাঁচ হাজার মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। হঠাৎ বৈদ্যুতিক আগুন ছড়িয়ে পড়লে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। 

রয়টার্সকে তারা আরও জানায়, আগুনে চার্চের প্রবেশপথ বন্ধ হয়ে যায়। এতে পদদলিত হয়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিহতদের অধিকাংশই শিশু। 

চার্চে আগত ইয়াসির মনির নামের এক উপাসক বলেছেন, মানুষজন চার্চের তৃতীয় এবং চতুর্থ তলায় জড়ো হয়েছিল। দ্বিতীয় তলা থেকে আমরা ধোঁয়া আসতে দেখলাম। লোকজন সিঁড়ি দিয়ে দৌড়ে নিচে নামতে গিয়ে একজন আরেকজনের ওপর পড়ে। 

তিনি আরও বলেন, এরপর আমরা বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পেলাম এবং জানালা দিয়ে আগুন আসতে দেখলাম। মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে তিনি প্রথম তলায় ছিলেন এবং সেখান থেকে বের হয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে এই দুর্ঘটনার পর মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি এক টুইটে নিহতের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।