ঠাসা সূচির কারণে অনেক ক্রিকেটারই এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন। কেউ আবার একটা বা দুটো ফরম্যাটে দেশের হয়ে খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারা গুরুত্ব দিচ্ছেন ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেটকে। কারণ কম সময়ে বেশি আয়। এতে করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনেকের মনেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করছে।

এতদিন ছিল আইপিএল, বিগ ব্যাশ, পিএসএল, টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট, সিপিএল, বিপিএল ও এলপিএলের মত টুর্নামেন্ট। নতুন করে ক্রিকেট বিশ্বকে নাড়া দিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের লিগ ও দক্ষিণ আফ্রিকার লিগ। দুটিই শুরু হবে আগামী জানুয়ারিতে।

সব মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্রমেই সঙ্কুচিত হয়ে আসছে বলে মনে করেন কপিল। ভারতের স্বাধীনতার ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সিডনিতে একটি অনুষ্ঠানে ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করলেন তিনি। শুধু তাই নয়, এখনকার ক্রিকেটকে কপিল তুলনা করছেন ইউরোপিয়ান ফুটবলের সাথে। কারণ ফুটবলে দেশের সাথে দেশের কম খেলা হয়। বরং খেলাটা বেশি হয় ক্লাবে ক্লাবে। তাই সারাবছরই ক্রিকেটাররা ক্লাবে ক্লাবে খেলে থাকে। এমনটা ক্রিকেটে হলে অচিরেই হারিয়ে যাবে ক্রিকেটের সৌন্দর্য।

সিডনি মর্নিং হেরাল্ডকে কপিল দেব বলেন, একদিনের আন্তর্জাতিক ঘিরে যে আগ্রহ কমছে তা অস্বীকারের উপায় নেই। তবে আইসিসিকেই এই ফরম্যাটকে বাঁচানোর জন্য বড় দায়িত্ব পালন করতে হবে। এটা অনেকটা ইউরোপের ফুটবলের মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে। এক দেশ অন্য দেশের বিরুদ্ধে খেলে না। বিশ্বকাপের সময় চার বছর অন্তর অনেক দল একে অপরের মুখোমুখি হয়। ক্রিকেটও কি এমন দিকে যাচ্ছে যেখানে শুধু বিশ্বকাপ হবে, আর বাকিটা সময় সকলে ক্লাব বা ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলে বেড়াবেন?

আইসিসিও বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টকে। আইসিসির আগামী ভবিষ্যৎ সফর সূচিতে আইপিএলের জন্য আলাদা 'উইন্ডো' দেওয়া হচ্ছে। সেই আড়াই মাসে বিশ্বের কোথাও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট হবে না। এছাড়াও বিভিন্ন দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের সময় সেই দেশগুলি খেলবে না কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ।

এটা হওয়ার আগেই আইসিসিকে সাবধান করে কপিল বলেন, 'আইসিসিকে আরও সময় নিয়ে দেখতে হবে, তারা কীভাবে ওয়ানডে ক্রিকেট ও টেস্ট ম্যাচ ক্রিকেটকে রক্ষা করতে পারে, শুধু ক্লাব ক্রিকেট নয়।'