ইউক্রেনের বন্দর থেকে ছেড়ে যাওয়া শস্যবাহী প্রথম জাহাজ পূর্ব নির্ধারিত গন্তব্য সিরিয়ায় পৌঁছেছে।  প্লানেট ল্যাবস পিবিসির স্যাটেলাইট ইমেজ বার্তা সংস্থা এপি বিশ্লেষণ করে এমনটাই জানিয়েছে।

এর আগে গত জুলাইয়ে ইউক্রেন থেকে খাদ্যশস্য রপ্তানি পুনরায় শুরু করার জন্য তুরস্ক এবং জাতিসংঘের কূটনৈতিক তৎপরতায় রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়। চুক্তিতে তুরস্ক ও জাতিসংঘও স্বাক্ষর করেছে। এই চুক্তির আওতায়ই এই জাহাজটি সিরিয়ায় পৌঁছাল। বুধবার এই খবর দিয়েছে আল-জাজিরা। 

এদিকে ইউক্রেনের জাহাজ সিরিয়ায় পৌঁছানোর খবরে অনেককে বিস্মিতও করেছে। কারণ সিরিয়া রাশিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং ইউক্রেনের সঙ্গে দেশটি কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরুর আগে সিরিয়া রাশিয়ার দখলকৃত এলাকা থেকে শস্য আমদানি করতো। 

এর আগে শস্যবোঝাই জাহাজ ওডেসা বন্দর ছাড়লে নিজেদের কৃষিপণ্য নিরাপদে রপ্তানি করতে পারার ইঙ্গিত হিসেবে এর প্রশংসা করেছিল কিয়েভ। এখন দেশটির রাজোনি নামের ওই জাহাজ সিরিয়ায় পৌঁছার খবর পাওয়া গেল।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। এরপর ইউক্রেন থেকে খাদ্যশস্য রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। এতে বিশ্বব্যাপী খাদ্য মূল্য বেড়ে যায় এবং লাখ লাখ মানুষকে অনাহারের ঝুঁকিতে ফেলে দেয়। সেই সংকট কাটাতেই জাতিসংঘ ও তুরস্ক উদ্যোগ নিয়ে পুনরায় ইউক্রেনের খাদ্যশস্য রপ্তানির চেষ্টা চালিয়েছিল।