রাজধানীর শাহজাহানপুর এলাকায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে মারুফ হোসেন (১৬) নামে এক কিশোর খুন হয়েছে। গতকাল বুধবার রাতে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। সে রাজারবাগের একটি ওয়ার্কশপের কর্মচারী ছিল। কে বা কারা কেন তাকে হত্যা করেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া জানান, ছুরিকাঘাতে ওই কিশোরকে হত্যা করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। ঘটনাটি সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে। তদন্তে ঘটনার বিস্তারিত বেরিয়ে আসবে।

পুলিশ ও স্বজনের সূত্রে জানা যায়, মুগদার মানিকনগর এলাকায় থাকত মারুফ। গতকাল রাত সাড়ে ৯টার দিকে শাহজাহানপুর রেলওয়ে কলোনি এলাকায় পুরাতন পুলিশ ফাঁড়ির সামনে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। তখনই তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার বুকের বাম পাশে ছুরিকাঘাতের জখম রয়েছে।

নিহতের মামী শিউলী আক্তার জানান, মারুফের বন্ধুদের মাধ্যমে খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে তাকে মৃত অবস্থায় পান। মারুফের জন্মের সময়ই তার মা হাসিনা বেগম মারা যান। পরে সুমি বেগম নামে এক নারী তাকে নিজের সন্তানের মতো বড় করে তোলেন। তার সঙ্গেই মুগদায় থাকত মারুফ। তার বাড়ি কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার জয়পুরা গ্রামে।