যুক্তরাজ্যে দৈনন্দিন জীবনযাত্রার ব্যয় সংকটের মধ্যে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম ৮০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। 

যুক্তরাজ্যের সরকারি বিদ্যুৎ ও গ্যাসের বিপণন সংস্থা-অফজেম আজ শুক্রবার জানায়, সরবরাহকারীদের সঙ্গে নির্দিষ্ট চুক্তি নেই, এমন গ্রাহকদের বার্ষিক বিল এক হাজার ৯৭১ পাউন্ড থেকে বাড়িয়ে গড়ে তিন হাজার ৫৪৯ পাউন্ড ধার্য করা হবে। আগামী অক্টোবর থেকে এটি কার্যকর হবে। খবর আল-জাজিরার। 

অফজেম ধারণা করছে জানুয়ারিতে এই পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। তখন গড় বিল ৫০০০ পাউন্ড বা তার বেশি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

অফজেম বলছে, বিশ্বব্যাপী পাইকারি গ্যাসের দামের ক্রমাগত বৃদ্ধির কারণেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। মহামারি করোনা এবং ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে রাশিয়া ধীরে ধীরে ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়াকেই জ্বালানি মূল্য রেকর্ড বৃদ্ধির জন্য দায়ী করছে অফজেম।

জ্বালানি মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণার পরপরই দাতব্য সংস্থাগুলো উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছে, আর্থিকভাবে চাপে থাকা পরিবারগুলো ‘সবচেয়ে খারাপ ক্রিসমাসের’ একটির মুখোমুখি হবে। 

১৯৮২ সাল থেকে সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতির হারে ভুগছে যুক্তরাজ্য। মুদ্রাস্ফীতি এরই মধ্যে ১০ শতাংশের ওপরে এবং বর্ধিত জ্বালানি মূল্যে কারণে আগামী মাসগুলোতে ১৩ শতাংশে পৌঁছানোর পূর্বাভাস রয়েছে। 

অফজেমের পরিচালক জোনাথন ব্রিয়ারলি বলেন, ‘আমরা জানি, এই মূল্যবৃদ্ধি যুক্তরাজ্যজুড়ে পরিবারে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে এবং গ্রাহকদের এখন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমি নিয়মিত গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলি এবং আমি জানি যে আজকের খবর অনেকের জন্য খুবই উদ্বেগজনক হবে। তবে আমরা বাধ্য হয়েই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’