মানিকগঞ্জে আরিফ শিকদার নামে ধান কাটার এক শ্রমিককে জবাই করে হত্যা মামলায় আরেক শ্রমিককের মৃত্যুদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার সকাল ১১ টায় আসামির উপস্থিতিতে মানিকগঞ্জের সিনিয়র দায়রা জজ জয়শ্রী সমদ্দার এই রায় ঘোষণা করেন। এর মধ্য দিয়ে হত্যাকাণ্ডের ২৪ ঘন্টার মধ্যে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল ও সাড়ে তিন মাসের মধ্যে রায় ঘোষণা করা হলো।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ওই শ্রমিকের নাম হৃদয় । তিনি দৌলতপুর উপজেলার ব্রাহ্মন্দী গ্রামের মেহের আলী শেখের ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর ১২ মে দৌলতপুর উপজেলার ৩ জন ধানকাটার শ্রমিক ধামরাই উপজেলার দ্বিমুখা গ্রামে ইউনূছ আলীর বাড়িতে যান কাজ করার জন্য। ১৬ মে দুপুরে সাটুরিয়া উপজেলার গর্জনা বেলতলী এলাকায় শ্রমিক আরিফ শিকদার ধান কেটে সেচ দেওয়া মেশিন ঘরে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। এসময় পূর্ব  শত্রুতার জের ধরে আসামি হৃদয় ধানকাটার ধারালো কাস্তি দিয়ে আরিফ শিকদারকে গলা কেটে হত্যা করেন। পরে পালিয়ে  যাওয়ার স্থানীয় লোকজন হৃদয়কে আটক করে সাটুরিয়া থানা পুলিশের কাছে সোর্পদ করে। এই ঘটনায় নিহতের ভাই মনোয়ার শিকদার ওই দিনই বাদী হয়ে সাটুরিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা সাটুরিয়া থানার উপপুলিশ পরিদর্শক জিয়াউল হাসান। আদালতে মামলায় মোট ১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি হৃদয়কে মৃত্যুদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেন আদালত।  

রাষ্ট্রপক্ষের মামলাটি পরিচালনা করেন পিপি আব্দুস সালাম। আসামি পক্ষের আইনজীবী একেএম কায়ছার বলেন, তারা উচ্চ আদালতে আপীল করবেন।