আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী চন্দন শীলের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে একমাত্র প্রার্থী ছিলেন তিনি। মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ায় চন্দন শীল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের পরবর্তী চেয়ারম্যান হতে যাচ্ছেন।

রোববার মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের পর তার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেন সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ার রহমান।

এদিন জেলার ২টি সংরক্ষিত ও ৫টি সাধারণ ওয়ার্ডে দাখিল করা ২৭ প্রার্থীর সবার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়। এর মধ্যে সাধারণ ৪ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডে একজন করে প্রার্থী থাকায় এবং তাদের মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ায় তারাও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

জেলা নির্বাচন অফিসের তথ্য অনুযায়ী, সংরক্ষিত ১ নম্বর ওয়ার্ডে ৩ জন এবং ২ নম্বর ওয়ার্ডে ৫ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এছাড়া সাধারণ ১ নম্বর ওয়ার্ডে ৪ জন, ২ নম্বর ওয়ার্ডে ৯ জন এবং ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ৪ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এদিকে মনোনয়ন বৈধ হলেও প্রার্থীরা একে অপরের বিরুদ্ধে আপত্তি জানিয়ে আগামী ২১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারের (সার্বিক) কাছে অভিযোগ দিতে পারবেন।

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ সময়। ২৬ সেপ্টেম্বর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে এবং আগামী ১৭ অক্টোবর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

প্রসঙ্গত, চন্দন শীল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এবং ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি জেলা শাখার সভাপতি। ২০০১ সালের ১৬ জুন নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়াস্থ আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলায় দুই পা হারান তিনি।