ইরানের বিক্ষোভকারীদের সামনে 'রেড লাইন' টেনে দিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। দেশের চলমান বিক্ষোভকে 'বিশৃঙ্খলা' দাবি করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। রাইসি বলেন, মাহসা আমিনির মৃত্যু অত্যন্ত দুঃখজনক, তবে এর জন্য যে বিক্ষোভ হচ্ছে, তা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য। খবর এনডিটিভির।

সম্প্রতি একটি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন রাইসি। এতে তিনি বলেন, যারা এসব বিক্ষোভে যোগ দিচ্ছে, তাদের কঠিনভাবে সামলানো হবে। এটাই ইরানি জনগণের দাবি। ইরানে মানুষের নিরাপত্তাই হচ্ছে রেড লাইন এবং কেউই এটি অতিক্রম করতে পারবে না। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, শত্রুরা এখন ইরানের জাতীয় ঐক্যে ফাটল ধরানোর চেষ্টা করছে এবং ইরানিদের একে অপরের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিচ্ছে।

রাইসি বলেন, আমিনির মৃত্যু নিয়ে তিনি অত্যন্ত দুঃখিত। শিগগির তাঁর মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে ফাইনাল রিপোর্ট আসবে। কিন্তু রাস্তায় যারা বিক্ষোভ করছে, তাদের বিষয় আলাদা।

ইরানে গত তিন বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ চলছে। এতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারীও যোগ দিয়েছে। অনেকেই তার হিজাব পুড়িয়ে ফেলছে, কেউ কেটে ফেলছে চুলও। দেশটিতে নারীর পোশাক নিয়ে যে কড়াকড়ি রয়েছে, তার প্রতিবাদেই এসব করছেন নারীরা।

এদিকে আমিনির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভের সমর্থনে আফগানিস্তানে বৃহস্পতিবার নারীদের আয়োজিত একটি সমাবেশ বানচাল করতে তালেবান বাহিনী ফাঁকা আকাশ অভিমুখে গুলি ছোড়ে।

কাবুলে ইরান দূতাবাসের সামনে আফগানিস্তানের প্রায় ২৫ নারী এ বিক্ষোভ-সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় তাঁদের ইরানের প্রতিবাদ বিক্ষোভে ব্যবহার করা একই ধরনের স্লোগান দিতে দেখা যায়। তাঁরা চিৎকার করে বলতে থাকেন 'নারী, জীবন, স্বাধীনতা! পরে তালেবান বাহিনী আকাশে গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে।