বিতর্কিত গণভোটে চার অঞ্চল নিজেদের বলে ঘোষণার এক দিনের মাথায় ইউক্রেনীয় সেনাদের তীব্র প্রতিরোধে পূর্বাঞ্চলীয় দোনেৎস্কের লাইম্যান শহর থেকে পিছু হটেছে রুশ বাহিনী। শনিবার অধিকৃত অঞ্চলটির ওই গুরুত্বপূর্ণ শহরের নিয়ন্ত্রণ নেয় ইউক্রেনীয় সেনারা। এ সময় হাজারো রুশ সৈন্যকে অবরুদ্ধ করা হয় বলে জানিয়েছে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। শহরটি থেকে নিজ সেনাদের সরিয়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্র বলছে, লাইম্যান হাতছাড়া হওয়ায় রুশ প্রেসিডেন্ট ভদ্মাদিমির পুতিনের জন্য যুদ্ধ আরও কঠিন হয়ে পড়বে। খবর এএফপি ও রয়টার্সের।

দোনেৎস্কের শহরগুলোর মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লাইমেনকে ওই অঞ্চলের উত্তরে যুদ্ধের রসদ সরবরাহ ও পরিবহনের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করত রুশ বাহিনী। শহরটির নিয়ন্ত্রণ ইউক্রেনীয় সেনাদের হাতে চলে যাওয়া মস্কোর দোনবাসের পুরো শিল্পাঞ্চল দখলের পরিকল্পনায় বড় ধাক্কা বলে মনে করা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে ওই এলাকাসহ দোনবাসের আরও বেশ কিছু এলাকা মুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

নিজেদের ভূমি পুনরুদ্ধারের বিষয়টি জানান দিতে লাইম্যান শহরের একটি নামফলকের কাছে ইউক্রেনের পতাকা টানানোর ভিডিও পোস্ট করেছে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে প্রতিরোধের জন্য শহর থেকে অধিক সুবিধাজনক লাইনে সৈন্য প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও জানায় মন্ত্রণালয়।

পরাজয় ও ক্ষয়ক্ষতি বাড়তে থাকায় ইউক্রেনে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র ও রাশিয়ার মুসলিমপ্রধান চেচনিয়া অঞ্চলের প্রধান রমজান কাদিরভ। তবে তুলনামূলক কম ক্ষতির পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের পরামর্শ তাঁর। রুশ সেনাদের লাইমেন থেকে হটিয়ে দেওয়ার পর শনিবার তিনি এ পরামর্শ দিলেন।

দোনেৎস্কে পরাজয়ের মধ্যেই সদ্য রুশ অধিকৃত ইউক্রেনের চার গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলকে রাশিয়ার বলে আইনত স্বীকৃতি দিয়েছেন দেশটির সাংবিধানিক আদালত। পশ্চিমাদের ব্যাপক নিন্দা ও প্রতিবাদের মুখেই আদালত মস্কো সমর্থিত অঞ্চলের নেতাদের সঙ্গে পুতিনের স্বাক্ষরিত সংযুক্তি চুক্তিকে অনুমোদন দিলেন। নতুন চারটি এবং এর আগে দখল করে নেওয়া ক্রিমিয়া অঞ্চল মিলিয়ে ইউক্রেনের মূল ভূখণ্ডের প্রায় ২০ শতাংশ দখল করে নিয়েছে রাশিয়া।

এদিকে, আট মাস ধরে চলা যুদ্ধের বিষয়ে অক্টোবরের শুরুতেই রুশ বাহিনীর হতাহতের সংখ্যা প্রকাশ করেছে ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী। রোববার তারা দাবি করেছে, রাশিয়ার প্রায় ৬০ হাজার ১১০ সেনা নিহত হয়েছে আর ট্যাঙ্ক ধ্বংস হয়েছে ২ হাজার ৩৭৭টি। দেশটি বলছে, মস্কো গত ২৪ ঘণ্টায় ৫০০ সৈন্য হারিয়েছে।
এদিকে, কয়েক দিনের মধ্যেই ইউক্রেনকে মনুষ্যবিহীন আধুনিক বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সরবরাহ করার কথা জানিয়েছে জার্মানি। প্রথম পর্যায়ে চারটি উন্নত আইআরআইএস-টি বিমান দেওয়া হবে বলে জানান দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

আত্মঘাতী ড্রোন দিয়ে জেলেনস্কির বেড়ে ওঠার শহরে হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। রোববার ভোরে দক্ষিণ ইউক্রেনের ওই শহরটিতে হামলা চালানো হয়। এতে একটি স্কুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রাশিয়া এসব হামলায় ব্যবহার করছে ইরানের তৈরি আত্মঘাতী ড্রোন।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের অফিস জানিয়েছে, ন্যাটোর সদস্যপদ পেতে ১০টি দেশের সমর্থন পেয়েছে দেশটি।