রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় না বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। এ নিয়ে তিনি একটি আদেশও জারি করেছেন। আলোচনার সম্ভাবনাকে 'অসম্ভব' উল্লেখ করে ডিক্রিতে স্বাক্ষরের পর জেলেনস্কি বলেন, 'মর্যাদা ও সততা কী, তা পুতিন জানেন না। আমরা রাশিয়ার সঙ্গে সংলাপের জন্য প্রস্তুত, তবে তা পুতিনের সঙ্গে নয়, রাশিয়ার অন্য কোনো প্রেসিডেন্টের সঙ্গে।'

বিতর্কিত গণভোটের মাধ্যমে গত শুক্রবার ইউক্রেনের পূর্ব ও দক্ষিণাঞ্চলীয় ৪ অঞ্চল নিজেদের ঘোষণা করার পর এরই মধ্যে অধিকৃত দুটি অঞ্চল প্রায় হাতছাড়া রাশিয়ার। ইউক্রেনীয় বাহিনীর প্রবল প্রতিরোধে দোনেৎস্কের প্রধান শহর লাইম্যান থেকে পিছু হটার পর এখন দক্ষিণের খেরসন থেকেও পিছু হটছে রুশ বাহিনী। যুদ্ধে যখন ক্রমেই বিপর্যস্ত রুশ বাহিনী, ঠিক সেই সময় জেলেনস্কি আলোচনার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিলেন।

এদিকে, জেলেনস্কির এমন সিদ্ধান্তের পর ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, শান্তি আলোচনার বিষয়ে ইউক্রেনের অবস্থান পরিবর্তনের জন্য অপেক্ষা করবে মস্কো। হোক সেটি বর্তমান প্রেসিডেন্ট কিংবা ইউক্রেনের জনগণের স্বার্থে তাঁদের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট পর্যন্ত।

মঙ্গলবার ইউক্রেনীয় বাহিনী দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর খেরসনের খুব কাছে পৌঁছে গেছে। অঞ্চলটির রুশ নিযুক্ত কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আর নিয়মিত ভাষণে সোমবার রাতে জেলেনস্কি বলেছেন, অনেক এলাকায় তীব্র লড়াই চলছে। ইউক্রেনের পাল্টা আক্রমণের অগ্রগতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে সাংবাদিকদের অনেকাংশেই দূরে রাখা হয়েছে।

খেরসনে নিযুক্ত রুশ নেতা ভদ্মাদিমির সালদো স্বীকার করেছেন, ইউক্রেনীয় বাহিনী ফ্রন্টলাইনের প্রায় ৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে ডিনিপ্রো নদীর তীরের শহর দুদচানির কাছে পৌঁছে গেছে। তিনি বলেন, ওই এলাকার কিছু বসতি কিয়েভ বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ বলেন, ইউক্রেনীয় ট্যাঙ্কগুলো জোলোটা বলকার দক্ষিণে ব্যাপক গোলাবর্ষণ করেছে। অবশ্য তাঁর দাবি, ওই লড়াইয়ে অন্তত ১৩০ জন ইউক্রেনীয় সেনাকে হত্যা করেছে রুশ বাহিনী।

আর সালদোর মতে, দুটি ইউক্রেনীয় ব্যাটালিয়ন খেরসন থেকে প্রায় ৭০ কিলোমিটার পূর্বে কাখোভকা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে। স্টেশনটি বন্দরনগরী নোভা কাখোভকাতে অবস্থিত। রয়টার্স জানিয়েছে, ডিনিপ্রো নদীর পশ্চিম তীরে প্রায় ২৫ হাজার রুশ সৈন্যের সরবরাহ লাইনকে লক্ষ্যবস্তু করেছে ইউক্রেনীয় বাহিনী।

এদিকে, গত ২১ সেপ্টেম্বর পুতিন রিজার্ভ বাহিনী গঠনে আংশিক সেনা সমাবেশ ঘোষণার পর গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ২ লাখ মানুষকে রুশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগ করা হয়েছে বলে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু দাবি করেছেন। তিনি জানান, গঠিত ইউনিটের কর্মীদের ৮০টি কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

ইউক্রেনের ৪ অঞ্চলকে সংযুক্ত করার বিষয়টি অনুমোদন দিয়েছে রাশিয়ার ফেডারেশন কাউন্সিল। রুশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে মঙ্গলবারের অধিবেশনে সর্বসম্মতভাবে এটি আইন হিসেবে পাস হয়। এর আগে নিম্নকক্ষেও সংযুক্তির বিষয়টি পাস হয়। ওই নথি এখন যাবে পুতিনের হাতে। তিনি স্বাক্ষর করলেই ইউক্রেনের খেরসন, জাপোরিঝিয়া, লুহানস্ক ও দোনেৎস্ক অঞ্চল চূড়ান্তভাবে রাশিয়ায় যুক্ত হবে। তবে এসব অঞ্চল রাশিয়া দখলে রাখতে পারবে কিনা, তা নিয়ে জোর সংশয় রয়েছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে টুইটারে একটি 'শান্তি পরিকল্পনা' প্রস্তাব করেছেন গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রধান নির্বাহী ও বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্ক। তাঁর প্রস্তাব হলো, জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে ইউক্রেনের ৪ অঞ্চলে গণভোট অনুষ্ঠানের। মাস্ক লিখেছেন, 'মানুষ যদি চায়, তাহলে তাঁরা রাশিয়ায় যুক্ত হবে।' তাঁর প্রস্তাবের পক্ষে জনমত জরিপও চালাচ্ছেন তিনি। অবশ্য তাঁর এ প্রস্তাবে ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়েছেন জেলেনস্কি। তিনিও টুইটারে পাল্টা একটি জনমত জরিপ চালাচ্ছেন।