কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় গত সোমবার বিক্ষোভকারী স্কুলছাত্রীদের ওপর হামলা ও মারধরের পর মঙ্গলবারও ইরানের রাজধানী তেহরানে প্রতিবাদ অব্যাহত ছিল। এ দিন শিক্ষার্থীরা এক শীর্ষ কর্মকর্তাকে হেনস্তা করেছেন। এ সময় তাঁরা সরকারবিরোধী স্লোগানও দিয়েছেন। খবর এএফপির।

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, সোমবার ইরানের রাজধানী তেহরানের শহীদ সদর গার্লস কারিগরি স্কুলের বাইরে বিক্ষোভের পর কাঁদানে গ্যাস ছোড়েন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা।

১৫০০ তাসভির নামের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বলা হয়, তেহরানের সদর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, মারধর ও তল্লাশি করা হয়েছে। এতে সানা সোলেইমানি নামের এক শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এটি নাগরিকদের অধিকার লঙ্ঘন বলেও দাবি করা হয়। এ ঘটনার পর অভিভাবকরা স্কুলের সামনে বিক্ষোভ করেন। এ সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তাঁদের ওপর হামলা ও মানুষের বাড়িতেও গুলি চালায়।

কঠোর পোশাক বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর গত ১৬ সেপ্টেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মাহসা আমিনি। এর প্রতিবাদেই বিক্ষোভ ছড়ায় ইরানের অন্তত ৭০টি শহরে। মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, এখন পর্যন্ত বিক্ষোভে হত্যা করা হয়েছে ১২২ জন বিক্ষোভকারীকে।