ইরানি ড্রোন ব্যবহার করে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভসহ দেশটির সামরিক ও বৈদ্যুতিক অবকাঠামোয় ভয়াবহ হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। এতে দেশটির লাখ লাখ বাসিন্দা বিদ্যুৎহীন ও পানির সমস্যায় পড়েছেন। এতদিন অস্বীকার করলেও আজ শনিবার ইরান স্বীকার করেছে যে, তারা রাশিয়াকে ড্রোন সরবরাহ করেছে। তবে ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরুর আগে থেকেই দেশটিকেকে ড্রোন দিতে শুরু করে তারা। 

দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আব্দুল্লাহিয়ান এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান। খবর এএফপি ও আল-জাজিরার।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর আগে রাশিয়ার কাছে কিছু ড্রোন বিক্রি করে তাঁর দেশ। তবে এসব অস্ত্র ইউক্রেনের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য বিক্রি করা হয়নি। 

তিনি বলেন, এই যুদ্ধে তেহরান কোনো পক্ষকেই সমর্থন করছে না। এমনকি ড্রোনের বিষয়ে ইউক্রেনের সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত রয়েছেন তাঁরা। যদি ইউক্রেন সরকারের কাছে ইরানের তৈরি ড্রোন ব্যবহার করে রুশ বাহিনীর ধ্বংসযজ্ঞের প্রমাণ থাকে, তবে তারা তা আমাদের কাছে উপস্থাপন করতে পারে। আশা করছি, ইউক্রেন সরকার দ্রুত এ বিষয়ে তথ্যপ্রমাণ সামনে আনবে।

এর আগে ইরানের কর্মকর্তারা বলেছিলেন, রাশিয়ার সঙ্গে ইরানের প্রতিরক্ষা সহযোগিতার সম্পর্ক রয়েছে। তবে ইউক্রেন যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য মস্কোর কাছে ইরান কোনো অস্ত্র সরবরাহ করেনি, করছেও না।