ইন্দোনেশিয়ায় সোমবার ৫ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৬২ জনে দাঁড়িয়েছে। নিহতদের মধ্যে অনেক শিশু রয়েছে, যারা ভূমিকম্পের সময় স্কুলে ছিল। আহত হয়েছে এক হাজারেরও বেশি মানুষ। এ ছাড়া ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে পড়েছে বহু মানুষ। তাদের উদ্ধারে জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন দেশটির উদ্ধারকর্মীরা। ধ্বংসস্তূপে আটকে পড়াদের উদ্ধারে জোর দিতে উদ্ধারকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। গতকাল মঙ্গলবার তিনি এ আহ্বান জানান।

ভূমিকম্পটি জাভার পার্বত্য এলাকায় আঘাত হানে সোমবার। এতে পার্শ্ববর্তী সিয়ানজুর শহরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ভূমিধসে কোথাও কোথাও পুরো গ্রাম মাটিচাপা পড়েছে। কমপক্ষে ২২ হাজার বাড়ি ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়েছে এবং ৫৮ হাজারের বেশি মানুষ বাড়িঘর হারিয়ে বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে। উদ্ধারকারীরা ধংসস্তূপের ভেতর থেকে বেঁচে যাওয়া লোকজন খুঁজছেন।

জাতীয় অনুসন্ধান ও উদ্ধার এজেন্সি বলছে, নিহতদের মধ্যে অনেক শিশু রয়েছে। যারা ভূমিকম্পের সময় স্কুলে ছিল। আহত হয়েছে এক হাজারেরও বেশি মানুষ।

কর্মকর্তারা জানান, বিধ্বস্ত বাড়িঘরের ধ্বংসস্তূপে আটকে পড়ে অধিকাংশ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। আহতদের অনেকে সিয়ানজুর হাসপাতালের পার্কিংয়ে রাতভর অবস্থান করেন। আহত ব্যক্তিদের একটি অংশকে অস্থায়ী তাঁবুতে চিকিৎসা দেওয়া হয়। স্থানীয় কমপাস টিভির ফুটেছে লোকজনকে খাবার ও আশ্রয় চাইতে দেখা যায়। জরুরি সহায়তা এখনও পৌঁছেনি বলে ধারণা করা হচ্ছে। রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনতারাকে পুলিশের মুখপাত্র দেদি প্রসেতিও বলেন, উদ্ধার প্রচেষ্টায় সহায়তার জন্য কয়েকশ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। খবর বিবিসি ও রয়টার্সের।