টানা ছয় বছর দায়িত্ব পালন শেষে আগামী ২৯ নভেম্বর অবসরে যাচ্ছেন পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। তবে তাঁর আগেই সামনে এলো বিস্ম্ফোরক তথ্য। বাজওয়ার পরিবারের 'বিপুল সম্পদের তথ্য' ফাঁস করেছে একটি অনুসন্ধানী নিউজ ওয়েবসাইট ফ্যাক্ট ফোকাস। কর নথির বরাত দিয়ে ওয়েবসাইটটি এই তথ্য দেওয়ার দাবি করেছে। বেআইনিভাবে কর নথি ফাঁসের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার। খবর ডনের।

সেনাপ্রধান বাজওয়ার পরিবারের কর নথি 'বেআইনি ও অন্যায্যভাবে' ফাঁসের বিষয়টি সোমবার গুরুত্বের সঙ্গে নেন অর্থমন্ত্রী। অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, এটি আইনে দেওয়া কর তথ্যের সম্পূর্ণ গোপনীয়তার স্পষ্ট লঙ্ঘন।

আগের দিনই কথিত কর রিটার্ন ও সম্পদের তথ্যের বরাত দিয়ে নিউজ ওয়েবসাইট ফ্যাক্ট ফোকাসের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, সেনাপ্রধানের পরিবার গত ছয় বছরে কয়েক শ কোটি রুপির সম্পদ গড়ে তুলেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত পাকিস্তানি সাংবাদিক আহমেদ নুরানির করা ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, জেনারেল বাজওয়ার মেয়াদকালে শূন্য থেকে বিলিয়নিয়ার হয়েছেন তাঁর স্ত্রী আয়শা আমজাদ। স্বামী সেনাপ্রধান হওয়ার আগে উল্লেখযোগ্য কোনো সম্পদ ছিল না তাঁর। তবে বাজওয়ার ছয় বছরের মেয়াদে তিনি এখন হাজার হাজার কোটি রুপির মালিক। একই অবস্থা পরিবারের অন্য সদস্যদেরও।

ফ্যাক্ট ফোকাসের দাবি, ২০১৩ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত বাজওয়ার পরিবারের সদস্যদের সম্পদের পরিমাণ এবং সেগুলোর ওপর দেওয়া ট্যাক্সের তথ্য প্রকাশ করেছে তারা।

মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, আজ পর্যন্ত অজানা কর্মচারীদের পক্ষ থেকে এই গুরুতর ত্রুটির পরিপ্রেক্ষিতে কর আইনের লঙ্ঘন, কেন্দ্রীয় রাজস্ব বোর্ডের (এফবিআর) তথ্য হাতিয়ে নেওয়া ও অর্পিত দায়িত্ব ভঙ্গের বিষয়টি তদন্তে তারিক মাহমুদ পাশাকে নির্দেশনা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।