ঢাকার আদালত চত্বর থেকে ছিনিয়ে নেওয়া দুই জঙ্গি যেন সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে গা ঢাকা দিতে না পারে সে জন্য দেশটির সীমন্তে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে পাওয়া নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ভারতের পাঁচ রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয় এবং মিজোরামে সীমান্তরক্ষী বাহিনীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে পশ্চিমবঙ্গ আসাম এবং ত্রিপুরার সবকটি স্থল সীমান্তে পলাতক দুই জঙ্গিকে শনাক্তকরণের জন্য তাদের ছবি লাগানো হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ভারতে আগত যাত্রীদের চলছে অতিরিক্ত তল্লাশি। 

গত রোববার (২০ নভেম্বর) দুপুরে পুরান ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সামনে থেকে ফিল্মি কায়দায় প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন ও লেখক অভিজিৎ রায় হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জেএমবির দুই সদস্য আবু সিদ্দিক সোহেল ও মইনুল হাসান শামীমকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাদের সহযোগীরা। এরপরই ঢাকায় ব্যাপক তল্লাশি অভিযানের পাশাপাশি বাংলাদেশের সমস্ত সীমান্ত এলাকায় জারি করা হয় অতিরিক্ত সতর্কবার্তা। 

জানা যায়, শেষ ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশের তরফে পাওয়া নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ভারতের সীমান্ত এলাকায় সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে অভিবাসন দপ্তরকেও। সীমান্তে বাড়ানো হয়েছে অতিরিক্ত টহল। সীমান্তের কাঁটাতার বিহীন এলাকায় বাড়ানো হয়েছে অতিরিক্ত নিরাপত্তারক্ষী। 

এ বিষয়ে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) দক্ষিণবঙ্গের মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি কথা বলতে রাজি হননি।