পারিবারিক কলহের জেরে ৯ দিন আগে শিশুসন্তানকে সঙ্গে নিয়ে চাকরির সন্ধানে যশোর থেকে চট্টগ্রাম আসেন ফাতেমা খাতুন রিমা। নগরীর পাহাড়তলী থানার অলংকার মোড়ে গাড়ি থেকে নেমেই পড়েন প্রতারকের খপ্পরে। চাকরি দেওয়ার কথা বলে দিনভর নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ঘোরানো হয় তাঁকে। একপর্যায়ে তাঁর ১১ মাসের সন্তানকে নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যায় প্রতারক। পরে ঢাকায় এক দম্পতির কাছে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয় শিশুকে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা এলাকা থেকে শিশু অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার দেওয়া তথ্যে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের এক দম্পতির কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধারের পর তাদেরও গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তার প্রতারক কাউসার হোসেন বাবু বরিশালের বাকেরগঞ্জের সন্তোষদির মান্নান হাওলাদারের ছেলে। আর দম্পতি ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার পানগাঁওয়ের গোলাম হোসেন ও তাঁর স্ত্রী লাকি আক্তার। মূল অপহরণকারী বাবু থাকে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার উত্তর গোয়ালবন্দ কাশিপুর গ্রামে।
পাহাড়তলী থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, রিমা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে যশোরের ঝিকরগাছা থেকে চাকরির সন্ধানে প্রথমে ঢাকায় ও পরে সেখান থেকে গত ২১ নভেম্বর চট্টগ্রামে আসেন। অলংকার মোড়ে অপহরণকারী বাবুর সঙ্গে তাঁর কথা হয়। তাঁকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিল সে। পরে তাঁর অগোচরে শিশুটিকে নিয়ে পালিয়ে যায় বাবু। খোঁজাখুঁজি করেও না পেয়ে পরদিন যশোর চলে যান রিমা। গত বুধবার স্বজনদের নিয়ে এসে পাহাড়তলী থানায় মামলা দায়ের করেন তিনি। পুলিশ বাবুর অবস্থান শনাক্তের পর অভিযান চালিয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। পরে এক দম্পতির কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। ওই শিশুটিকে বাবুর কাছ থেকে ২০ হাজার টাকায় কিনেছিলেন তাঁরা। গ্রেপ্তার তিনজনকেই আজ আদালতে পাঠানো হবে। আর শিশুটিকে আদালতের মাধ্যমে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানান ওসি।