জাতিসংঘ জানিয়েছে, ২০২৩ সালে বিশ্বে ত্রাণপ্রত্যাশী মানুষের সংখ্যা প্রায় ৩৪ কোটিতে ঠেকবে। এটা আগের বছরের চেয়ে ২৫ শতাংশ বেশি। জাতিসংঘের মানবিক ও জরুরি ত্রাণ সমন্বয়কারী মার্টিন গ্রিফিথস এ সতর্কবার্তা দেন। জলবায়ু পরিবর্তন, ইউক্রেন যুদ্ধ ও চলমান কঠিন খাদ্য সংকটকে ভুখা মানুষের মিছিলের মুখ বাড়ানোর ক্ষেত্রে কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। খবর এএফপি ও গার্ডিয়ানের।
বুধবার জাতিসংঘ বলছে, বর্তমানে বিশ্বের প্রতি ২৩ জনের মধ্যে একজন আগামী বছর মানবিক ত্রাণপ্রত্যাশীর দলে থাকবে। ২০২২ সালের কয়েকটি 'চরম ঘটনা'র কারণে নতুন করে অন্তত সাড়ে ৬ কোটি ৫ লাখ মানুষ এ তালিকায় যুক্ত হয়েছে বলে জানান গ্রিফিথস।
ত্রাণপ্রত্যাশী ৩৩ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মুখে আহার জোগাতে অন্তত ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলার প্রয়োজন বলে হিসাব দিয়েছেন তিনি। গত বছর ৪ হাজার ১০০ কোটি ডলার সাহায্যের আবেদন জানিয়েছিল জাতিসংঘ। সহায়তা প্রয়োজন এমন মানুষের সংখ্যা হিসাব করলে তা চীন এবং ভারতের পর তৃতীয় জনবহুল দেশের সমান হবে। একে একটি 'হতাশাজনক' সংখ্যা হিসেবে উলেল্গখ করেন গ্রিফিথস।
এদিকে সহায়তা প্রয়োজন হওয়া ৬৮টি দেশের মধ্যে আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইয়েমেন, ইউক্রেন, ইথিওপিয়া, কঙ্গো ও সোমালিয়ার মতো ১০টি দেশকে ১০০ কোটি ডলার সহায়তা দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে জাতিসংঘ। তবে যুদ্ধসহ বিভিন্ন কারণে দুর্ভিক্ষের কিনারায় দাঁড়িয়ে থাকা এসব দেশে এটা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম বলে সংস্থাটির ভাষ্য।