তৈরি পোশাকে দ্বিতীয় প্রধান রপ্তানিকারক দেশের মর্যাদা পুনরুদ্ধার হয়েছে বাংলাদেশের। গতকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) প্রতিবেদন অনুসারে, ভিয়েতনামকে ছাড়িয়ে ২০২১ সালে পোশাক রপ্তানিতে আগের এ অবস্থান ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্ববাজারে পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশের অংশ ২০২০ সালের ৬ দশমিক ৩০ শতাংশ থেকে বেড়ে ২০২১ সালে হয়েছে ৬ দশমিক ৪০। অন্যদিকে ভিয়েতনামের অংশ ৬ দশমিক ৪০ থেকে কমে ২০২১ সালে হয়েছে ৫ দশমিক ৮০ শতাংশ।

এর আগে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশ দ্বিতীয় প্রধান রপ্তানিকারক ছিল। ২০২০ সালে করোনা মহামারির অভিঘাতে রপ্তানি বিঘ্নিত হওয়ায় ভিয়েতনামের কাছে এ অবস্থান হারায়। তবে গত বছর যে মাসে রপ্তানির অবস্থান সূচক প্রতিবেদন প্রকাশ করে ডব্লিউটিও, তার পরের মাসেই ভিয়েতনামকে ছাড়িয়ে যায় বাংলাদেশ এবং এ ধারা অব্যাহত রেখে গতকাল পেল আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, শীর্ষ পোশাক রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে চীন তার মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রেখেছে। বিশ্ববাজারে দেশটির হিস্যাও বেড়েছে। ৩১ দশমিক ৬০ থেকে ২০২১ সালে হয়েছে ৩২ দশমিক ৮০ শতাংশ। জোটগতভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) দ্বিতীয় প্রধান রপ্তানিকারক। সুতরাং প্রযুক্তিগতভাবে, বাংলাদেশ তৃতীয় বৃহত্তম রপ্তানিকারক ও ভিয়েতনাম চতুর্থ। তবে একক দেশের বিবেচনায় বাংলাদেশই দ্বিতীয়। এককভাবে পরের অবস্থানগুলো তুরস্ক ও ভারত যথাক্রমে পঞ্চম এবং ষষ্ঠ। এর পরে রয়েছে যথাক্রমে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, হংকং ও পাকিস্তান।