বিশ্বব্যাপী এ বছরও অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ ১ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের কারণে সাপ্লাই চেইন বিঘ্নিত হয়ে সরবরাহ সংকট দেখা দেওয়ার পরও এই প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। অস্ত্র বেচাকেনার স্টকহোম আন্তর্জাতিক শান্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (এসআইপিআরআই) বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। গতকাল সোমবার অস্ত্র খাতের ডাটাবেস নামে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। খবর আলজাজিরার।

এসআইপিআরআই প্রতিবেদন বলা হয়েছে, বিশ্বের শীর্ষ ১০০ প্রতিরক্ষা প্রতিষ্ঠানের অস্ত্র ও সামরিক সেবা বিক্রির পরিমাণ ২০২১ সালে ১ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়ে ৫৯২ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। এর মধ্যে ৪০টিই মার্কিন মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর মোট অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ ২৯৯ বিলিয়ন ডলার। অন্যদিকে ২০১৯-২০ সালে এই প্রবৃদ্ধির পরিমাণ ছিল ১ দশমিক ১ শতাংশ। এর মাধ্যমে টানা সাত বছর ধরে বৈশ্বিক অস্ত্র বিক্রি হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে এসআইপিআরআই।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, সাপ্লাই চেইনের বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার কারণে ২০২১ সালে অস্ত্রের বাণিজ্য বাধাগ্রস্ত হয়েছে এবং আগামী বছরগুলোতে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। প্রতিবেদনে আলাদা করে ইউক্রেনে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযানের কথা উল্লেখ করে বলা হয়, ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া এই যুদ্ধের কারণে সারা বিশ্বের অস্ত্র উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো পণ্য সরবরাহ সংক্রান্ত ঝামেলায় পড়েছে। পশ্চিমা দেশগুলোর জন্য অস্ত্র উৎপাদনে প্রয়োজনীয় কাঁচামালের উল্লেখযোগ্য সরবরাহকারী ছিল রাশিয়া।