ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

বিজেপির বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রসের

বিজেপির বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রসের

ছবি: টাইমস অব ইন্ডিয়া

কলকাতা প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৯ মার্চ ২০২৪ | ১৯:৫২

অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগে এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে বিধিভঙ্গের অভিযোগ জমা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রস।

নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না আজ শুক্রবার তা জানতে চেয়ে দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে মমতার দল।

প্রধানমন্ত্রী মোদির পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী রাজমাতা অমৃতা রায় এবং মালদহ উত্তরের বিজেপি প্রার্থী খগেন মুর্মুর বিরুদ্ধেও কমিশনে অভিযোগ জানিয়েছে তৃণমূল কংগ্রস।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে কৃষ্ণনগরের বিজেপি প্রার্থী রাজমাতা অমৃতা রায়কে ফোন করেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনে বাংলায় ক্ষমতাসীন দলের নিয়োগসহ একাধিক দুর্নীতির বিষয়টি উত্থাপন করেন রাজমাতা।

বিজেপি প্রার্থীর এই কথা শুনেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অমৃতাজি আমি আপনাকে একটা কথা বলি। আমি আইনি পরামর্শ নিচ্ছি। বাংলায় ইডির লোকেরা প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা বাজেয়াপ্ত করেছে। আর এই টাকা গরিব মানুষের। কেউ স্কুলশিক্ষক হওয়ার জন্য টাকা দিয়েছেন, কেউ ক্লার্ক হওয়ার জন্য। টাকাগুলো গরিবদের ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়ে আইনি পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে।’ এরপরই প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে ভোটারদের কৌশলে প্রভাবিত করার চেষ্টার অভিযোগে সরব হয় তৃণমূল কংগ্রেস।

আজ শুক্রবার দুপুরে তৃণমূলের রাজ্যসভার নেতা, বিদায়ী সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের তৃণমূলের প্রতিনিধি দল দিল্লিতে কমিশনের অফিসে হাজির হন। ডেরেক ছাড়াও দলে ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের মন্ত্রী শশী পাঁজা, শ্রমিকনেত্রী দোলা সেন, সাংসদ সাগরিকা ঘোষ ও সাকেত গোখলে।

সাংসদ ডেরেক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মুখে বড় বড় কথা বলেন, অথচ উনি নিজেই নির্বাচনী বিধি মানছেন না। যেভাবে কৌশলে ৩ হাজার কোটি টাকার অনুদান ফেরানোর কথা বলেছেন, তাতে পরিষ্কারভাবে উনি বিধিভঙ্গ করেছেন। এরপরও কমিশন কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে না?’

এদিন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ওই ফোনালাপের ভিত্তিতে কৃষ্ণনগরের বিজেপি প্রার্থী রাজমাতা অমৃতার বিরুদ্ধেও নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দায়ের করেছে তৃণমূল। দলটির অভিযোগ, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে সঙ্গে কথা বলার সময় অমৃতা রায় বলেছেন, মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায় না থাকলে বাংলায় সনাতন ধর্ম থাকত না।’ তৃণমূলের অভিযোগ, এই কথা বলে বিজেপির কৃষ্ণনগরের প্রার্থী ধর্মের নামে ভোট চাইছেন। ফোনালাপে অমৃতাকে স্পষ্ট বলতে শোনা গিয়েছে, ‘কৃষ্ণচন্দ্র রায় না থাকলে আমরা কেউ হিন্দু থাকতে পারতাম না। আমাদের ভাষা, পোশাক সব কিছুই পুরোপুরি বদলে যেত।’

এই অবস্থায় কৃষ্ণনগরের বিজেপি প্রার্থী ধর্মের নামে ভোট চেয়ে আদর্শ আচরণবিধি ভঙ্গ করেছেন বলে দাবি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। পাশাপাশি ঐতিহাসিক চরিত্রের নাম উল্লেখ করাও আদর্শ অনুযায়ী নিষিদ্ধ। এসব অভিযোগ জানিয়ে নির্বাচন কমিশনকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে আবেদন জানানো হয়েছে।

এদিন একইসঙ্গে রাজ্যটির মালদহ উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী খগেন মুর্মুর বিরুদ্ধেও নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দায়ার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের অভিযোগ, সম্প্রতি খগেন দাবি করেছিলেন, মালদহের প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছেন ওই লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়। এরই প্রতিবাদে কমিশনে অভিযোগ বলে জানিয়েছে তৃণমূল।

আরও পড়ুন

×