সিগারেটের প্রতিটি শলাকার গায়েই সাবধানবাণী বসাতে যাচ্ছে কানাডার সরকার। ধূমপানের বিষয়ে সচেনতা বাড়াতে বিশ্বে প্রথম এই ধরনের কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এই সংক্রান্ত আইন আগামী ১ আগস্ট থেকে কার্যকর হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে কানাডার স্বাস্থ্য সংস্থা।
এ আইনে প্রতিটি শলাকার গায়ে ‘সিগারেট ক্যান্সারের কারণ’ এবং ‘প্রতি টানেই বিষ’ এমন সব সাবধানবাণী মুদ্রিত থাকবে।
২০৩৫ সালের মধ্যে তামাকের ব্যবহার ৫ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনার লক্ষ্যে কানাডার সরকার এই পদক্ষেপ নিচ্ছে । প্রতিবছর ৩১ মে ‘বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস’ হিসেবে পালিত হয়। এ দিবস উপলক্ষে বুধবার হেলথ কানাডা এক ঘোষণায় বলেছে, নতুন আইনে তামাকজাত পণ্যে বসানো ‘স্বাস্থ্য সতর্কতা’ এড়িয়ে যাওয়া মানুষের জন্য কার্যত কঠিনই হবে।
স্বাস্থ্যবিষয়ক এই সংস্থার অনুমান, নতুন আইনটি কার্যকর হলে ২০২৫ সালের এপ্রিলের মধ্যে খুচরা বিক্রেতারা প্রতিটি শলাকায় বসানো নতুন সতর্কবার্তাযুক্ত সিগারেটই বিক্রি করবেন।
এ আইনে আলাদা আলাদ প্রতিটি সিগারেট, ছোট চুরুট, টিউব ও অন্যান্য তামাকজাত পণ্যের মোড়কে এই স্বাস্থ্য সতর্কতা থাকবে। আইনটির ব্যাপারে জনসাধারণের মতামত নিতে ৭৫ দিন সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছিল, যা শুরু হয়েছিল গত বছর।
এদিকে ইউরোপের প্রথম ‘ধূমপানমুক্ত’ দেশ হওয়ার কাছাকাছি রয়েছে সুইডেন। দেশটির জনসংখ্যার ৫ শতাংশেরও কম দৈনিক ধূমপায়ী হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। দেশটিতে কয়েক দশক ধরে ধূমপানবিরোধী প্রচারাভিযান এবং আইন প্রণয়নের কাজ করে যাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্য ‘স্নুস’  ইইউতে  নিষিদ্ধ রয়েছে; কিন্তু সিগারেটের বিকল্প হিসেবে সুইডেনে এটি বাজারজাত করা হয়। বিবিসি।


বিষয় : ‘প্রতি টানেই বিষ’

মন্তব্য করুন