আষাঢ়ে অশ্রুবিন্দু ঝরছে অঝোরে। রিমঝিম বৃষ্টিতে যখন চারদিকে মানুষ থমকে আছে, তখন কোলাহলে মুখর সমকাল সভাকক্ষে সুহৃদরা। তারা এসেছে সকল বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে, প্রাণের সংগঠন সুহৃদ সমাবেশে এক হতে। আনন্দ-আড্ডায় নিজেদের যুক্ত করতে। নিজেদের জানান দিতে এসেছে তারা। আমরা মানি না কোনো বাধা বিপত্তি, আমরা সুহৃদ তাই এগিয়ে চলি। দীর্ঘদিনের পুরোনো কমিটি নতুন করে গতিশীলতায় ফিরতে এই আহ্বান। সেই আহ্বানে সাড়া দেন ঢাকার কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যরা। উদ্দেশ্য- নতুন স্বপ্ন নতুন আশায় এগিয়ে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে 'সমকাল সুহৃদ সমাবেশ'-এর ঢাকা কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি গঠন।

এ উপলক্ষে সমকাল সভাকক্ষে এক সাংগঠনিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় সুহৃদদের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য ও পরামর্শ দেন সমকালের সহযোগী সম্পাদক সবুজ ইউনুস, বার্তা সম্পাদক খায়রুল বাশার শামীম, নগর সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রতিবেদক লোটন একরাম, ফিচার সম্পাদক মাহবুব আজীজ, অনলাইনের বার্তা সম্পাদক গৌতম মণ্ডল, সম্পাদকীয় বিভাগের প্রধান শেখ রোকন, যুগ্ম বার্তা সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, বিজনেস এডিটর জাকির হোসেন, সহকারী সম্পাদক জিয়া হাসান ও জ্যেষ্ঠ সহসম্পাদক হাসান জাকির।

আড্ডা কাব্যিকময় ও প্রাণবন্ত করতে মহাদেব সাহার কবিতা আবৃত্তির মধ্য দিয়ে আলোচনা শুরু করেন সভার সঞ্চালক সমকাল সুহৃদ সমাবেশের বিভাগীয় সম্পাদক আসাদুজ্জামান।
সভায় সুহৃদদের উদ্দেশে মোজাম্মেল হোসেন বলেন, 'আমরা সমকালের সুহৃদ, পরস্পরের সুহৃদ, আমরা এদেশের মানুষের সুহৃদ। সুহৃদ সমাবেশের সদস্যরা পাঠকদের তরুণতম অংশ। তারা বাধাহীন, তারা উদ্যমী, তারা দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করে চলছে। জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে লেখায় জীবনের সত্য তুলে আনতে হবে। তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম সুহৃদ সমাবেশের মাধ্যমে আমরা দেশ-জাতির জন্য কাজ করে যেতে চাই।'

সবুজ ইউনুস বলেন, সুহৃদরা তারুণ্যের প্রতীক। সাংগঠনিক কাজের পাশাপাশি লেখালেখি চালিয়ে যেতে হবে। সুহৃদদের সমকাল অনলাইনে লেখার ক্ষেত্রে অবারিত সুযোগ রয়েছে।

খায়রুল বাশার শামীম বলেন, সংগঠন মানুষকে ভালো কিছু করার তাড়না দেয়, ভালো কাজের প্রেরণা দেয়, মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সাহস দেয়। আপনাদের প্রিন্টের সঙ্গে সঙ্গে অনলাইনকেন্দ্রিক কার্যক্রম বাড়াতে হবে।

নগর সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী বলেন, লেখালেখির পাশাপাশি সুহৃদরা সাংগঠনিক চর্চার মাধ্যমে নিজেদের সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে, আগামীর দেশ নির্মাণে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে।

প্রধান প্রতিবেদক লোটন একরাম বলেন, সুহৃদের কার্যক্রম বেগবান করতে একটি ডাটাবেজ তৈরির মাধ্যমে প্রতিটি ইউনিটকে সমন্বয় করে একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে আনতে হবে।

ফিচার সম্পাদক মাহবুব আজীজ বলেন, সমকাল যতদিন থাকবে, সুহৃদ সমাবেশের ঘন সবুজ অরণ্য ততদিন থাকবে, যা ধরে রাখবে সুহৃদদের প্রাণবন্ত চোখ-হৃদয়। সুহৃদদের ধারাবাহিক পরম্পরাই আমাদের শিক্ষা দেয় আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, আমাদের ভাষা আন্দোলন, আমাদের সমকাল।

সম্পাদকীয় বিভাগের প্রধান শেখ রোকন বলেন, সুহৃদের মূল শক্তি তারুণ্য। অন্য কার্যক্রমের পাশাপাশি পরিবেশগত আন্দোলনে সুহৃদরা সক্রিয় ভূমিকা রাখছে এবং রাখবে।

পুরোনো কমিটি বিলুপ্ত করে জাহাঙ্গীর আলমকে আহ্বায়ক ও ফরিদুল ইসলাম নির্জনকে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। জাহাঙ্গীর আলম বলেন, 'নতুন কমিটি কীভাবে আরও গতিশীল হয়, সে ব্যাপারে সজাগ থাকব। শহর থেকে গ্রামে সুহৃদ ছড়িয়ে দেব। একটি সুন্দর দেশ গড়ব আমরা।'

সদস্য সচিব ফরিদুল ইসলাম নির্জন বলেন, 'সুহৃদদের নতুন আহ্বায়ক কমিটি আগামীতে আরও প্রাণ ফিরে পাবে। সারাদেশে সুহৃদদের প্রাণবন্ত করতে কাজ করে যাবে নতুন কমিটি। সুহৃদদের কেন্দ্রীয় কমিটি সারাদেশে তরুণদের সৃজন ও মনন চর্চায় নেতৃত্ব দেবে।'

আহ্বায়ক কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- যুগ্ম আহ্বায়ক মেহেরুন নেছা রুমা, এবিএম মাহমুদুল হাসান রানা, এস এম আল-আমিন, রাসেল আল মাহমুদ, বাহাউদ্দিন আল ইমরান, সদস্য শেলী আক্তার, সঞ্জিত মণ্ডল, তাইম শেখ, স্বর্ণময়ী মণ্ডল, কামরুন্নাহার রুমা, শাহিন আলম শাওন, আবুল হোসেন, মেহেদী হাসান, তরিকুল ইসলাম, রাবেয়া বশির রুমী, মোহাম্মদ মতিউল, ফাহাদ আনোয়ার, নাসির উদ্দিন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, তরিকুল ইসলাম, হিভা আনিকা, জিনাত ইসলাম জেনি, সারোয়ার হোসেন, রিফতি আল-জাবেদ, রায়হান আহমেদ, খালিদ আহমেদ রাজা, জান্নাতুল বাকি, আদিব মুমিন ও কায়সার আহমেদ।
সদস্য সচিব, ঢাকা কেন্দ্রীয় কমিটি