'নজরুল জীবনের ঊষালগ্নেই শ্রমজীবীদের দুর্দশা প্রত্যক্ষ করেছেন, যৌবনে যুদ্ধের ময়দানে মানবতার বিপর্যয় অবলোকন করেছেন, জীবনের নানা ঘাত-প্রতিঘাতে বৈষম্য, হিন্দু-মুসলিম দ্বন্দ্ব-সংঘাত, মানুষে মানুষে হানাহানি, লোভাতুরের নির্মম থাবা দেখেছেন, উপলব্ধি করেছেন এবং জীবনের সর্বশক্তি দিয়ে অনাচার-অবিচারের মূলোৎপাটনের চেষ্টা করেছেন, সৃষ্টি করে গেছেন অনবদ্য সব সাহিত্য; বাংলা সাহিত্যকে দিয়ে গেছেন অহংকারের একটি জায়গা, যা নিয়ে বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো যায়।' বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের জীবনী নিয়ে পাঠচক্র ও আলোচনা সভায় উঠে আসে এসব কথা। রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের আয়োজনে ১১ জুন শনিবার সমকাল প্রতিনিধির কার্যালয়ে কাজী নজরুল ইসলামের কর্মজীবন নিয়ে আলোচনা ও লেখা নিয়ে পাঠচক্র অনুষ্ঠিত হয়। কবির জীবনী পাঠ করেন রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক কাজী তামান্না, সাংস্কৃতিক ও বিনোদন সম্পাদক খাদিজা খাতুন, পাঠচক্র সম্পাদক আঁখি ইসলাম, কার্যনির্বাহী সদস্য খুরশিদা আক্তার, জোবায়ের হোসেন, কাওসার মুন্সী, তামান্না আফরোজ, রোকসানা রহমান। পাঠচক্র শেষে নজরুলের জীবনী নিয়ে আলোচনায় মুখ্য আলোচক ছিলেন রাজবাড়ী অংকুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক গোলাম সারোয়ার।

অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের উপদেষ্টা মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ, কমল কান্তি সরকার, কবি খোকন মাহমুদ, টাঙ্গাইল মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এসএম শামীম, রাজবাড়ী সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের শিক্ষক সুরজিৎ চক্রবর্তী, স্কুলশিক্ষক মঞ্জুর আহমেদ, নাট্য নির্দেশক ফয়েজুল হক কল্লোল প্রমুখ। সমকালের জেলা প্রতিনিধি সৌমিত্র শীল চন্দনের সঞ্চালনায় সভার সভাপতিত্ব করেন রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি আহসান হাবীব।
রাজবাড়ী প্রতিনিধি