চলনবিল অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার উধুনিয়া, বড়পাঙ্গাসী ও লাহিড়ী মোহনপুরের বাসিন্দাদের সারা বছর উল্লাপাড়া উপজেলা সদরে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হতো। ভাল রাস্তা ছিল না। তার ওপর বর্ষা মৌসুমে নৌকাই ছিল চলাচলের একমাত্র বাহন। স্বাধীনতার পর থেকেই এসব ইউনিয়নের মানুষ চলনবিলে বন্যামুক্ত উচ্চতায় স্থায়ীভাবে একটি প্রশস্ত রাস্তা নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। অবশেষে সড়ক ও জনপথ বিভাগ প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এ বছর মোহনপুর থেকে বাংলাপাড়া হয়ে উধুনিয়া পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি পাকা রাস্তা নির্মাণ করেছে।

এই রাস্তার বাংলা পাড়া থেকে উধুনিয়া পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার অংশ চলনবিলের বুক চিরে নির্মাণ করা হয়েছে। বন্যামুক্ত উচ্চতায় তৈরি রাস্তার দুই পাশের পুরো অংশের ঢালে বসানো হয়েছে আরসিসি ব্লক। বিলের প্রচণ্ড ঢেউয়ের আঘাতে রাস্তাটির কোনো ক্ষতি হবে না। চলতি বছরের জুন মাসে রাস্তাটি জনসাধারণের যাতায়াতের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। আধুনিক ডিজাইনের অত্যন্ত সুন্দর রাস্তা এবং সেই সঙ্গে চলনবিলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে কয়েকমাস ধরেই প্রতিদিন দুপুরের পর থেকেই শতশত নারী পুরুষ ও শিশুরা এই রাস্তায় বেড়াতে আসছেন। দূরদুরান্ত থেকে নৌকা যোগেও আসছেন অনেক মানুষ।

মূলত, এখানকার বিকেল এখন পরিণত হচ্ছে মানুষের মিলন মেলায়। একই সঙ্গে রাস্তা খুলে দেওয়ার পর থেকেই দর্শণার্থীরা এখানে একটি কফি হাউজ বা ভাল মানের রেস্টুরেন্ট স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। এবার সেই দাবি পূরণ হলো।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বাংলাপাড়া-উধুনিয়া আঞ্চলিক সড়কের পাশে নতুন নির্মিত ‘বিসমিল্লাহ কফি হাউজ’ নামের একটি কফি হাউজের উদ্বোধন করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক মিঠু চলনবিলের পানির ওপরে এই নান্দনিক কফি হাউজ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। তার সঙ্গে রয়েছেন আরও কয়েকজন অংশীদার।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট উধুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল করিম বাচ্চু এবং বড় পাঙ্গাসী ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ন কবীর লিটন জানান, চলনবিলের ওপর আকর্ষণীয় এই কফি হাউজটি প্রতিষ্ঠার জন্য মানুষ রাস্তা নির্মাণের পর থেকেই দাবি জানিয়ে আসছিলেন। এই জনদাবি পূরণ হয়েছে। বাংলাপাড়া-উধুনিয়া রাস্তাটি সিরাজগঞ্জ ও পাবনা জেলার মানুষের জন্য এখন একটি নান্দনিক ভ্রমণ স্থানে পরিণত হয়েছে। এখানে প্রাণ প্রকৃতির ধারক চলন বিলের নৈসর্গিক দৃশ্য এখন প্রতিনিয়তই ভ্রমণ পিপাসুদের নজর কাড়ছে।