মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত

অপরাধ না করেও কারাগারে ৩ ছাত্র

প্রকাশ: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০     আপডেট: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   

খুলনা ব্যুরো

ঠিকাদারি কাজ নেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ কিংবা চাঁদা দাবির ঘটনা নয়, বরং খুলনার ঠিকাদার ইউসুফ আলীর মেয়ে রুকাইয়ার সঙ্গে প্রেমের জেরে তাদের বাড়িতে গিয়েছিলেন কলেজছাত্র মো. আবু সাঈদ ও তার তিন সহপাঠী। তারা বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় তাদের লক্ষ্য করে ঠিকাদার গুলি চালালে লক্ষ্যভ্রষ্ট গুলিতে এক কিশোরী আহত হয়। এ ঘটনায় উল্টো চার কলেজছাত্রের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা করেছেন ইউসুফ। সেই মামলায় এক মাস ধরে কারাগারে রয়েছেন তিন কলেজছাত্র।

বেসরকারি সংস্থা বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের তদন্তে উঠে এসেছে এমন চিত্র। গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় খুলনা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের খুলনা বিভাগীয় সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ অলিউল ইসলাম এই তথ্য উপস্থাপন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সরকারি সুন্দরবন আদর্শ কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগে অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সাঈদের সঙ্গে তিন বছর ধরে নগরীর মিস্ত্রিপাড়া এলাকার ঠিকাদার ইউসুফ আলীর মেয়ে কলেজছাত্রী রুকাইয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ঠিকাদার তার মেয়েকে অন্যত্র বিয়ে দিচ্ছেন এমন খবর শুনে গত ২৮ আগস্ট আবু সাঈদ ও তার তিন সহপাঠী ঠিকাদারের বাড়িতে যান। তারা ঠিকাদারের সঙ্গে কথা বলার একপর্যায়ে তিনি উত্তেজিত হয়ে পড়েন।

এ সময় তার স্ত্রী ও শ্যালক তাদের দ্রুত বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার পরামর্শ দেন। তারা সিঁড়ি দিয়ে দ্রুত নামার সময় ঠিকাদার লাইসেন্স করা পিস্তল হাতে তাদের ধাওয়া করেন। এ ছাড়া তাদের লক্ষ্য করে দুই রাউন্ড গুলি ছোড়েন। এ সময় লক্ষ্যভ্রষ্ট একটি গুলি প্রতিবেশী কিশোরী লামিয়ার পায়ে বিদ্ধ হয়।

এ ঘটনায় ইউসুফ মেয়ের প্রেমের ঘটনা গোপন করে চার ছাত্রের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা করেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, তিনি একটি ঠিকাদারি কাজ পান, সেই কাজটি বিক্রি করার জন্য তাকে চাপ দেওয়া হয়। তিনি কাজ বিক্রি করতে না চাইলে চার যুবক তার বাড়িতে গিয়ে তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২৯ আগস্ট মামলার পর পুলিশ ওই চার কলেজছাত্রকে গ্রেপ্তার করে। এর মধ্যে ইসমাইল সম্প্রতি জামিনে মুক্ত হয়েছেন। অপর তিনজন বিনা অপরাধে এখনও কারাগারে রয়েছেন। মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত দল ইউসুফ আলীর বাড়িতে কথা বলতে গেলেও তারা কথা বলেনি, এমনকি গেটও খোলেনি। সাঈদের সঙ্গে রুকাইয়ার একান্ত ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও এবং মোবাইলে ভিডিও কথোপকথনের রেকর্ড রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত প্রতিবেদনে চাঁদাবাজির মামলাটি সুষ্ঠুভাবে তদন্ত এবং গুলি করার ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণসহ ১০ দফা সুপারিশ করা হয়েছে।