২১ বিচারকসহ অধস্তন আদালতের ৬২ জন করোনায় আক্রান্ত

প্রকাশ: ২১ জুন ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

২১ জন বিচারক এবং ৬২ জন অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ মোট ৮৩ জন মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া নওগাঁ জেলা জজ আদালতের অফিস সহায়ক মহিউদ্দিন মোহন ও মাদারীপুর জেলা জজ আদালতের জারি কারক কাওসার মিয়া করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

রোববার আইন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ড. মো. রেজাউল করিম এ সব তথ্য জানান।

ড. মো. রেজাউল করিম জানান, আইন ও বিচার বিভাগ পরিচালিত করোনা মনিটরিং ডেস্কের প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী- ২১ জন বিচারকসহ অধস্তন আদালতের মোট ৮৩ জন বিচারক ও কর্মচারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত বিচারকদের মধ্যে ইতোমধ্যে দুইজন সুস্থ হয়েছেন। তারা হলেন- নেত্রকোণার জেলা ও দায়রা জজ মো. শাহজাহান কবির এবং মুন্সীগঞ্জের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রোকেয়া রহমান।

আইনমন্ত্রণালয় ও সুপ্রিমকোর্ট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে ঢাকা সিএমএইচ এর আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন লালমনিরহাটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) ফেরদৌস আহমেদ। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন  আছেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৮ এর বিচারক (সিনিয়র জেলা জজ) বেগম শামীম আহমেদ। জয়পুরহাটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) মো. রস্তুম আলী ও ভোলার জেলা ও দায়রা জজ এবিএম মাহমুদুল হক চিকিৎসাধীন আছেন।

এ ছাড়া অধস্তন আদালতের আরও ১৫ জন বিচারক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাসায় চিকিৎসাধীন আছেন। তারা হলেন- কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) কিরণ শংকর হালদার, আইন মন্ত্রণালয়য়ের উপ সচিব (জেলা জজ) এস. মোহাম্মদ আলী, কক্সবাজারের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রেজাউল করিম. বরিশালের অতিরিক্ত জেলা জজ মুহাম্মাদ মাহবুব আলম, সিলেটের যুগ্ন জেলা জজ মাসুদ পারভেজ, নারায়ণগঞ্জের যুগ্ম জেলা জজ মাসুদ জামান, কুড়িগ্রামের ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. তৈয়ব আলী, নেত্রকোনার সহকারী জজ মো. মেহেদী হাসান, চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিপলু কুমার দে, চট্টগ্রামের মহানগর হাকিম আবু সালেহ মোহাম্মদ নোমান, নোয়াখালীর হাতিয়া চৌকি আদালতের জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট মো. নিজামউদ্দিন, ঢাকার সিনিয়র সহকারী জজ তসরুজ্জামান, খাগড়াছড়ির জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাসান,  ঢাকার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম  রেজমিন সুলতানা ও গাজীপুরের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট ইকবাল হোসেন।

রেজাউল করিম সমকালকে জানান, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক মনিটরিং ডেস্কের রিপোর্ট প্রতিদিন পর্যবেক্ষণ করছেন ও আক্রান্ত্রদের খোঁজ-খবর রাখছেন। আইন সচিব মো. গোলাম সারওয়ার প্রতিদিনের রিপোর্ট রাত ১০টার মধ্যে আইনমন্ত্রীকে অবহিত করছেন ও মন্ত্রীর পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন।