আসছে গ্রীষ্মকালীন ছুটিতে দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনাকে সঙ্গে নিয়ে জাপান ভ্রমণের অনুমতি চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেছেন তাদের মা নাকানো এরিকো। 

মঙ্গলবার আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় নাকানো এরিকোর আইনজীবীরা আবেদনটি করেন। 

আবেদনে বলা হয়, জাপানে শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনার ছোট বোন ও নানা-নানী রয়েছে। এ জন্য শিশুদের নিয়ে তিনি (মা) জাপানে বেড়াতে যেতে চান।

২০০৮ সালে শরীফ ইমরান (৫৮) ও জাপানি চিকিৎসক নাকানো এরিকো (৪৬) জাপানের বিদ্যমান আইন অনুযায়ী বিয়ের পর টোকিওতে বসবাস শুরু করেন। তাদের ১২ বছরের সংসারে তিন কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। তারা তিনজনই টোকিওর চফো সিটিতে অবস্থিত আমেরিকান স্কুল ইন জাপানের শিক্ষার্থী ছিলেন। 

গত বছরের ১৮ জানুয়ারি শরীফ ইমরান ও এরিকোর মধ্যে পারিবারিক বিরোধ দেখা দেয়। পরে শরীফ ইমরান দুই শিশুকে ঢাকা নিয়ে আসেন। এরপর দুই শিশুকে নিজ জিম্মায় ফেরত পেতে ওই বছরের ১৯ আগস্ট হাইকোর্টে রিট করেন তাদের মা নাকানো এরিকো। 

২১ নভেম্বর দুই শিশু তাদের বাবা ইমরান শরীফের কাছে থাকবে বলে রায় দেন হাইকোর্ট। পরে ৫ ডিসেম্বর হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন জাপানি মা। 

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৩ ফেব্রুয়ারি রায় দেন আপিল বিভাগ। রায়ে ঢাকার পারিবারিক আদালতে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দুই শিশু তাদের জাপানি মা নাকানো এরিকোর কাছে থাকবে বলে বলা হয়। 

এ ছাড়া হাইকোর্টের রায় বাতিল করে আপিল বিভাগ বলেন, এই সময়ে নাকানো শিশুদের নিয়ে দেশত্যাগ করতে পারবেন না মা এরিকো। বাবা ইমরান শরীফ শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন।