ডাস্ট অ্যালার্জি প্রতিরোধের উপায়

প্রকাশ: ১৪ মার্চ ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

অনেকেরই ডাস্ট অ্যালার্জির সমস্যা আছে। রাস্তাঘাটে বের হলে  কিংবা ঘরবাড়ি পরিষ্কার করতে গেলে অনেকেই হাঁচি-কাশি দিয়ে অস্থির হয়ে পড়েন। কারও কারও ক্ষেত্রে চোখ থেকে অনবরত পানিও পড়ে। সাধারণত ধুলোর মধ্যে থাকা নানা জীবাণুর কারণে এমনটা হয়।বাড়াবাড়ি রকমের অ্যালার্জি থাকলে নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে আসে অনেকের। কারও কারও আবার ত্বকে র‌্যাশও দেখা দেয়।

বিশেষ কিছু ওষুধ ও নিয়ম মেনে চললে  ডাস্ট অ্যালার্জির সমস্যা কিছুটা দূর করা যায়। তবে চিকিৎসার পাশাপাশি কিছু খাবারও এ ধরনের অ্যালার্জির সমস্যা কমাতে ভূমিকা রাখে।যেমন-

গ্রিন টি: দিনে দু থেকে তিনবার গ্রিন টি পান করুন। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট অ্যালার্জির  সমস্যা কমাতে সাহায্য করে। চোখে লাল ভাব, ত্বকে র‌্যাশ বের হওয়া প্রতিরোধেও এটি কার্যকর।

ইউক্যালিপটাস: মাথা যন্ত্রণা, নাক দিয়ে পানি পড়া ইত্যাদি প্রতিরোধ করতে এক বাটি গরম পানিতে কয়েক ফোঁটা ইউক্যালিপটাস তেল দিয়ে ভাপ নিন। এতে বন্ধ নাক খুলে যাবে।সেই সঙ্গে নাকের ভিতরে অ্যালার্জির কারণে কোনও প্রদাহ থাকলে সেটাও প্রতিরোধ করা যাবে।

দুগ্ধজাত পদার্থ: খাওয়ার পর টক দই, ছানা, লাচ্ছি খেতে পারেন। এগুলোতে থাকা প্রোবায়োটিক উপাদান অসুখের জীবাণুর সঙ্গে যেমন লড়ে, তেমনি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়। এগুলো খেলে ধুলোবালি থেকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে।

ঘি: প্রাকৃতিক ভাবেই যে কোনও অ্যালার্জি বা প্রদাহের সঙ্গে লড়াই করতে সক্ষম ঘি। এক চামচ খাঁটি ঘি তুলায় লাগিয়ে সরাসরি র্যা শ ওঠার জায়গায় লাগান। এতে সহজে আরাম পাওয়া যাবে। এছাড়া এক চামচ করে ঘি খেলেও ঠাণ্ডা লাগা বা অ্যালার্জির প্রবণতা কমবে।

সবুজ শাকসবজি: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সঙ্গে  সঙ্গে অ্যালার্জির প্রবণতা কমাতে সাহায্য করে সবুজ শাকসবজি। এগুলোতে থাকা ভিটামিন, খনিজ শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

বিষয় : জীবনশৈলী স্বাস্থ্য