চোখে ধূসর সাজ

প্রকাশ: ১৫ জানুয়ারি ২০২০   

আভা জান্নাত

মডেল :সারিকা                        ছবি :আরমান বাপ্পি

মডেল :সারিকা ছবি :আরমান বাপ্পি

শীত মানেই যেন দাওয়াতের মৌসুম। প্রায়ই সন্ধ্যায় দাওয়াত। আনিকা ড্রেসিং টেবিলের সামনে দাঁড়িয়ে ভাবছে, গতকালও বিয়ের নিমন্ত্রণ ছিল, আজও আছে! আজ চোখের সাজে কীভাবে নতুনত্ব আনা যায়? হ্যাঁ, আমি আজ সাজব দু'চোখজুড়ে ধূসর সাজে। রাতের যে কোনো নিমন্ত্রণে চোখের সাজ হতে হবে মোহনীয়। সে ক্ষেত্রে নিমন্ত্রণের জন্য দু'চোখে ধূসর সাজ একদম উপযোগী-

শুরুতে মুখমণ্ডল খুব ভালোভাবে পরিস্কার করে নিতে হবে। চোখের চারপাশে আগে ব্যবহূত কাজলের ঝাপটা আছে কিনা ভালোভাবে খেয়াল করে নিতে হবে। তা না হলে মেকআপ ঠিকমতো বসবে না। চোখের এই সাজটি খুব মনোযোগের সঙ্গে নিতে হবে। একটু এদিক-ওদিক হলেই যেন পুরো আয়োজনটি মাঠে মারা যাবে।

আমাদের দেশে হিসাব কষলে দেখা যাবে, ১০০ জন মেয়ের ৭০-৮০ জনের হুডেড আই (ফোলা চোখ)। তাদের যে কোনো চোখের মেকআপই সহজে মানিয়ে যায়। তবে স্মোকি সাজ (ধূসর সাজ) অনেক বেশি মোহনীয় করে তোলে তাদের জন্য। বললেন বিউটি সেলুন রেডের কর্ণধার আফরোজা পারভীন।

যে কোনো পোশাকের সঙ্গেই ধূসর সাজ ভালো লাগে। তবে ধূসর সাজের সঙ্গে অন্য সাজের কিছুটা রদবদল হয়ে যায়। যেমন চোখে ধূসর মেকআপ নিলে ঠোঁটে গাঢ় লিপস্টিক ততটা ভালো লাগে না। কিন্তু মুখের গড়নের সঙ্গে আবার কারও কারও মানিয়েও যেতে পারে। তাই রূপবিশেষজ্ঞের পরামর্শের সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে আগে জানতে হবে। আয়নাতে নিজের কাজে নিজের বিশ্নেষণ বড় জরুরি।

ফোলা চোখের মেয়েরা ধূসর সাজে নিজেকে সাজালে তাদের চোখ আরও বড় দেখাবে। উজ্জ্বলতা বেড়ে যাবে বহুগুণে। এই সাজের সঙ্গে মুখে হালকা মেকআপ নিতে হবে। ঠোঁটে ন্যুড লিপস্টিক দিলে ধূম্রজালে স্নিগ্ধতা ফুটে উঠবে, বললেন আফরোজা।

তিনি আরও বলেন, এই মেকআপে বিশেষ ব্রাশ দরকার হয়। ব্লেন্ডিং ব্রাশ, আই শ্যাডো ব্রাশ, অ্যাঙ্গেল ব্রাশ। একা সাজতে চাইলে এই ব্রাশের ব্যবহার খুব ভালোভাবে জেনে নিতে হবে। একই পরিমাণে নিয়ে দু'চোখে ব্রাশ ব্যবহার করতে হবে। শুরুতে পরিমাণ ঠিক না থাকলে পরে বিপাকে পড়তে হবে। প্রথমে চোখের ওপরের অংশে লাগাতে হবে প্রাইমার এবং কন্সিলার। এটা সাজকে দীর্ঘস্থায়ী করতে সাহায্য করে। পাপড়ির ওপরে শ্যাডো ব্যবহারের শুরুতে সব থেকে হালকা রঙের শ্যাডো বেজ হিসেবে ব্যবহার করতে হবে। এরপর অ্যাশ বা মাঝারি রঙের শ্যাডো লাগাতে হবে। আর খেয়াল রাখতে হবে যেন হালকা রঙের সঙ্গে গাঢ় শেড ভালো মতো মিশে যায়। এরপর চোখের বাইরের কোনায় সব থেকে গাঢ় রংটি ব্যবহার করতে হবে। এ ক্ষেত্রেও খেয়াল রাখতে হবে যেন অন্য রং দুটির সঙ্গে গাঢ় রংটি ভালোভাবে মিশে যায়। আর চোখের ভেতরের কোনায় ওপরে এবং নিচে হালকা রঙের শ্যাডো ব্যবহার করতে হবে। এতে চোখ উজ্জ্বল ও বড় দেখাবে।

চোখের সাজের সঙ্গে চুলের সাজ যেন একে অন্যের বন্ধু। ধূসর সাজ নিলে কার্ল চুল খুব ভালো মানায়। এই শীতে জিন্স, টপসের সঙ্গে ধূসর সাজ এক ওয়েস্টার্ন লুক তৈরি করে। আবার শাড়ির সঙ্গেও মানিয়ে যায়। কালো, ম্যাজেন্টা, নীল, রুপালি শাড়িতে ধূসর সাজে যেন মায়াবিনীর আবির্ভাব। আবার সালোয়ার-কামিজে এখন দেখা যায় মজার মজার কাজ করা। গলায় এবং হাতার অসাধারণ কাজের সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে ধূসর মেকআপ করলে নিমন্ত্রণে আপনাকে অনবদ্য করে তুলবে। ধূসর মেকআপের বিষয়ে বিশেষ পরামর্শ দিয়েছেন আফরোজা পারভীন, যাদের চোখ ভেতরের দিকে, তাদের জন্য এই মেকআপটি উপযোগী হবে না। আসলে সাজটা ঠিক সামনে ধরা দেবে না। সে জন্য অন্য পরিপাটি যে কোনো মেকআপ তারা করে নিতে পারেন। মেকআপ করে, নিমন্ত্রণ শেষে বাড়ি ফিরে ক্লান্ত হয়ে বিছানায় না গিয়ে আগে মেকআপ পরিস্কারের দিকে গুরুত্ব দিন। আপনার সাজটা নেওয়া যতটা আনন্দের, তোলাটাও ঠিক ত্বকের সুস্থতার জন্য ততটা গুরুত্বের। আর ধূসর মেকআপে চোখের ওপর বেশি চাপ পড়ে যায়। সে জন্য বিষয়টি সচেতনতার সঙ্গে দেখাটা জরুরি।