ঢাকা শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শীতে সরিষার তেল ব্যবহারের উপকারিতা

শীতে সরিষার তেল ব্যবহারের উপকারিতা

সরিষার তেল

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ১৪:৫৬ | আপডেট: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ১৫:০০

শীতের মৌসুমে ঠান্ডা, ফ্লু, ভাইরাল জ্বর, ত্বকে ফুসকুড়িসহ নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এসব সমস্যা দূর করতে সরিষার তেল ব্যবহার খুবই উপকারী।  এর ব্যবহার শুধু সাধারণ কিছু রোগ থেকে মুক্তি দেয় না, গুরুতর রোগ থেকেও মুক্তি দেয়। হালকা গরম সরিষার তেল দিয়ে শরীরে মালিশ করলে রক্ত সঞ্চালন উন্নত হয়। শীতে সরিষার তেল ব্যবহারের আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে।

সরিষার তেলে উপস্থিত ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের পাশাপাশি ওমেগা-৬ ফ্যাটি অ্যাসিড, পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, ভিটামিন ই এবং খনিজের মতো পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা অনেক রোগে উপকারী। শীতে সরিষার তেল আমাদের জন্য ওষুধের মতো কাজ করে। এটি সাধারণ রোগ থেকে শুরু করে শরীরে জমে থাকা খারাপ কোলেস্টেরল কমাতেও কাজ করে। শীতে সরিষার তেলের নানা উপকারিতা ও ব্যবহারের উপায় জানানো হয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম ‘ইন্ডিয়া টিভি’র এক প্রতিবেদনে। 

সর্দি, কাশি ও ফ্লুতে উপকারী: শীতকালে সর্দি-কাশির সমস্যা দেখা যায়, এমন পরিস্থিতিতে সরিষার তেল দিয়ে মালিশ করলে বুকে জমে থাকা কফ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এবং কফও বের হয়ে যায়।

নাক বন্ধ হলে গরম পানিতে সরিষার তেল মিশিয়ে ভাপ নিলে আরাম পাওয়া যায়। এছাড়াও, সরিষার তেলে কিছু লবঙ্গ রসুন দিয়ে কিছুক্ষণ জ্বাল দিয়ে একটি পাত্রে রাখুন এবং প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে এর কয়েক ফোঁটা নাকে দিন। এতে দ্রুত ঠান্ডা থেকে মুক্তি পেতে পারবেন।

হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখে: সরিষার তেলে উপস্থিত ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড, মনোস্যাচুরেটেড এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে দারুন কার্যকর।  সবসময় সরিষার তেল দিয়ে খাবার রান্নার চেষ্টা করুন। এর পাশাপাশি ভর্তা বা সালাদে অল্প করে সরিষার তেল খাওয়া হৃৎপিণ্ডের জন্য উপকারী।

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমায়: হালকা গরম সরিষার তেল দিয়ে ব্যথার জায়গায় ম্যাসাজ করলে রক্ত সঞ্চালন উন্নত হয় এবং বাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। সরিষার তেলে উপস্থিত পুষ্টিগুণ হাত ও পায়ের ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করে।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: গবেষণায় দেখা গেছে,  সরিষার তেল ক্যান্সার কোষ কমাতে সাহায্য করে, এ কারণে রান্নায় সরিষার তেল ব্যবহার করুন। এছাড়াও এই তেল ব্যবহারে হাঁপানি, কাশি এবং দাঁতের ব্যথা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।
 

আরও পড়ুন

×