ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যুর ক্ষেত্রে ফের রেকর্ড হয়েছে। করোনা মহামারিতে দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ ৩ হাজার ৬৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই নিয়ে টানা চারদিন ধরে কভিড-১৯ এ তিন হাজারের বেশি মৃত্যু দেখল ভারত।

নতুন ৩ হাজার ৬৮৯ জনসহ ভারতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২ লাখ ১৫ হাজারে পৌঁছেছে।

রোববার সকালে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। খবর এনডিটিভির

তবে একই সময় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা আগের দিনের চেয়ে কিছুটা কম পাওয়া গেছে। ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩ লাখ ৯২ হাজার ৪৮৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে ভারতে করোনা শনাক্ত মোট রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৯৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের পর বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত। আর মোট দুই লাখ ১৫ হাজার ৫৪২টি মৃত্যু নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল ও মেক্সিকোর পর চতুর্থ স্থানে আছে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনবহুল দেশটি।

ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত রোগীর চাপে ভারতের হাসপাতালগুলোতে শৃঙ্খলা ধরে রাখা যাচ্ছে না। সঙ্গে যুক্ত হয়েছে শয্যা ও তীব্র অক্সিজেন সংকট। অক্সিজেনের অভাবে হাসপাতালগুলোতে ইতোমধ্যেই বহু রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

ভারতে তিন সপ্তাহ আগে প্রথমবারের মতো করোনা শনাক্তের সংখ্যা এক লাখ ছাড়ায়। এপ্রিলে নতুন করে দেশটিতে রেকর্ড ৬৬ লাখ করোনা রোগী শনাক্ত হয়। মার্চে ১০ লাখ ২৫ হাজার শানক্তের চেয়ে যা অনেক বেশী। ফেব্রুয়ারিতে দেশটিতে সাড়ে ৩ লাখ ও জানুয়ারিতে ৪ লাখ ৭৯ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল।

শুধুমাত্র এপ্রিলেই ভারতে ৪৫ হাজারেরও বেশি মানুষের করোনায় মৃত্যু হয়েছে। এর আগে মার্চে ৫৪১৭ জন, ফেব্রুয়ারিতে ২৭৭৭ ও জানুয়ারিতে ৫৫৩৬ জন করোনায় মারা যান।

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় তা পর্যালোচনা করতে রোববার সকালে জরুরি বৈঠকে বসেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

গত মাসে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া এক ভাষণে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ ভারতে ‘ঝড়ের মতো আঘাত হেনেছে’ বলে মন্তব্য করেছিলেন তিনি।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ১৯২টি দেশে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।