সীমান্ত জেলা সাতক্ষীরায় লকডাউনের পঞ্চম দিনে করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্চ হার শনাক্ত হয়েছে। জেলায় গত ২৪ ঘন্টায় ১৮২ জনের  নমুনা পরীক্ষা করে ১০৮ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫৯ দশমিক ৩৪ শতাংশ। জেলায় একদিনে এটিই করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্চ হার। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা  আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন ২ হাজার ৯৭ জন।

এদিকে, করোনার উপসর্গ নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আরো ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন-সাতক্ষীরা শহরের রাজার বাগান এলাকার নাজির আলী মিস্ত্রী (৭০), শ্যামনগর উপজেলার নৈকাটি গ্রামের সামাদ শেখ (৫৫), একই উপজেলার জয়নগর গ্রামের এল.এম বকসো (৮০) ও সদর উপজেলার আখড়াখোলা গ্রামের মিজানুর রহমান (৫০)। এনিয়ে জেলায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন কমপক্ষে ২৩৬ জন। আর করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৮ জন।
 
এদিন করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনকে কিছুটা কঠোর হতে দেখা গেছে। মোড়ে মোড়ে চলছে তল্লাশি। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশি চেকপোস্ট বসিয়ে চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য বিধি মানতে চলছে মাইকিং। বন্ধ রয়েছে দুরপাল্লার বাসসহ সকল ধরনের গণপরিবহন।

করোনা সংক্রমণের হার বৃদ্ধির মধ্যেও শহর ও গ্রামাঞ্চলে অবাধে মানুষ যাতায়াত করছেন। তারা কোন রকমেই মানতে চাচ্ছেন না স্বাস্থবিধি। ভোমরা স্থলবন্দরেও সীমিত পরিসরে চলছে আমদামি-রপ্তানি কার্যক্রম। তবে ভারতীয় চালক ও হেলপাররা যাতে খোলামেলা ঘুরে বেড়াতে না পারেন সেজন্য পুলিশ ও বিজিবির নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়াও লকডাউনের মধ্যে দোকানপাট খোলা রাখা, স্বাস্থ্যবিধি না মানাসহ বিভিন্ন অপরাধে জেলার বিভিন্ন স্থানে চলছে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান।

বিষয় : সাতক্ষীরা করোনা শনাক্ত করোনা সংক্রমণ

মন্তব্য করুন