করোনার সংক্রমণ রোধে চলমান কঠোর লকডাউনের তৃতীয় দিন চলছে রোববার। এদিন সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে রিকশা ও ব্যক্তিগত গাড়ি আগের দুদিনের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে।

সড়কের মোড়ে মোড়ে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি রয়েছে আগের মতোই। চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। মানুষও বেড়েছে বেশ। নানা কারণেই রাস্তায় বেরিয়ে এসেছে নগরবাসী। 

নিত্যপণ্যের দোকান ছাড়া প্রায় সব দোকানই বন্ধ রয়েছে। বেশ কিছু সড়কের পাশি গলিতে কাঁচা বাজার বসানো হয়েছে। প্রধান সড়কে মানুষের দেখা না পাওয়া গেলেও পাড়া মহল্লায় কিছু কিছু গলিতে জটলা দেখা গেছে।

অযথা ঘরের বাইরে বের হওয়ায় এরআগে শনিবার ঢাকায় ৩৮৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিন ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৩৭ জনকে মোট ৯৫ হাজার ২৩০ টাকা জরিমানা করেছেন। ট্রাফিক বিভাগ ৪৪১টি যানকে মোট ১০ লাখ ৮৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে।

এদিকে কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে সারাদেশে ১৮৬টি চেকপোস্ট পরিচালনা করে র‌্যাব। এ সময় টহল দেয় র‌্যাবের ১৮০টি দল। জনসচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি র‌্যাবের ২৭টি ভ্রাম্যমাণ আদালতও অভিযান চালায়। বিধিনিষেধ অমান্য করায় ২১২ জনকে এক লাখ ৯১ হাজার ৪৭০ টাকা জরিমানা করা হয়।

সরেজমিনে ফার্মগেট, গ্রিন রোড, কারওয়ান বাজার, এফডিসি মোড়, মগবাজার ও সাতরাস্তা এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কড়াভাবেই পালিত হচ্ছে লকডাউন। পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, অনেকে ঈদের ছুটি কাটিয়ে এখনও ঢাকায় ফেরেননি, আবার অনেকে ঢাকায় থাকলেও ঘরেই রয়েছেন। মূল সড়কে যানবাহন ও মানুষের চলাচল কম।