গোটা বিশ্বে ডায়াবেটিসে আক্রান্তর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকলে তবেই এই রোগটি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। কিন্তু তার জন্য কেবল ওষুধ খাওয়াই যথেষ্ট নয়। প্রথম থেকেই যদি খাওয়াদাওয়ার অভ্যাসে পরিবর্তন আনা যায়, তা হলে এই রোগকেও নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, যে সব খাবারে গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকে, ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের সেই সব খাবারই খাওয়া উচিত।  এমন কিছু সবজি আছে যেগুলি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। যেমন-

গাজর : গাজর অত্যন্ত পুষ্টিকর একটি সবজি। এতে  পর্যাপ্ত পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন, ফাইবার, ভিটামিন কে ১, ভিটামিন এ ও প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট রয়েছে। গাজরে গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ ১৬, যা অত্যন্তই কম। ফলে এই সবজি খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেশি হওয়ার আশঙ্কা থাকে না। বরং এটি টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।  এ কারণে প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় এই সবজিটি রাখা উচিত। এটি সিদ্ধ করে বা সালাদের মতো খেতে পারেন।

ব্রকোলি : ডায়াবেটিসে ভূগলে  প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ব্রকোলি রাখুন। এতে  আয়রন, ভিটামিন সি, ফাইবার, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়ামসহ একাধিক পুষ্টি উপাদান রয়েছে। ব্রকোলিতে থাকা যৌগ সালফোরাফেন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীর রক্তনালিকাকে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার হাত থেকে বাঁচায়। এতে থাকা গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণও মাত্র ১৫। সালাদ কিংবা স্যুপের সঙ্গে রোজ খেতে পারেন এই সবজিটি।

শসা : শসাতে পানির পরিমাণ খুবই বেশি থাকায়, তা শরীরকে আর্দ্র রাখতে সহায়তা করে। সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, শসাতে থাকা উপাদান মানবদেহে ইনসুলিন তৈরিতে সহায়তা করে। মাত্র ১৪ গ্লাইসেমিক ইনডেক্সযুক্ত এই সবজি খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে।

ঢেঁড়স : ঢেঁড়সে পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ফলিক অ্যাসিড, ক্যালশিয়াম, ফাইবার পাওয়া যায়। এতে গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণও মাত্র ১৭-২০।  নিয়মিত ঢেঁড়স খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। তরকারি বা সিদ্ধ যে কোনও ভাবেই খেতে পারেন এই সবজি।