গোটা বিশ্বে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ডায়াবেটিস রোগীর যথেষ্ট সংযত জীবনযাপন করা উচিত। বিশেষ করে ডায়াবেটিস রোগীদের কী খাওয়া এবং কী পান করা উচিত সে সম্পর্কে খুব সতর্ক থাকা দরকার। এমনকী খাদ্যাভ্যাসে সামান্য অসাবধানতা ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে সুগারের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। সে ক্ষেত্রেও খাওয়া-দাওয়ায় কিছু নিয়ম মানতে পারলে রোগটিকে দূরে বা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, একজন ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্যতালিকায় বেশি ফাইবার যুক্ত খাবার, ক্রিম ছাড়া দুধ, বাটারমিল্ক, মৌসুমি ফল আর তাজা শাকসবজি থাকা উচিত। তবে সবটাই খেতে হবে পরিমিত পরিমাণে।

শুকনো ফল শরীরের পক্ষে ভালো হলেও, বিশেষজ্ঞদের মতে, এই ধরনের খাবার ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ক্ষতিকর। কারণ, এর মধ্যে থাকা ফ্রুক্টোজ রক্তে শর্করার মাত্রায় পরিবর্তন আনতে পারে। এ কারণে এ ধরনের রোগীদের শুকনো ফলের পরিবর্তে তাজা ফল বেশি করে খাওয়া উচিত। তবে শুকনো ফলের মধ্যে বাদাম খাওয়া যেতে পারে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কয়েক ধরনের পানীয় বেশ উপকারী। যেমন-

১. ১০০ মিলি পানিতে এক চা-চামচ মেথি সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সেই পানি রোজ সকালে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।
  সকালে খালি পেটে লবণ, গোলমরিচ মেশানো টমেটোর রস খেলেও অনেক উপকার পাওয়া যায়।

 ২. ৬টি কাঠবাদাম সারা রাত পানিতে ভিজিয়ে পরের দিন খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

 ৩. দুধে কার্বোহাইড্রেট আর প্রোটিন সম পরিমাণে থাকে। দুধ রক্ত শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। তাই দিনে দু'বার দুধ খান।
 
৪. অ্যালোভেরা জুসের সবচেয়ে বড় দিক হচ্ছে এটি খাওয়াতে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। ভালো ফল পাওয়ার জন্য চিকিৎসকরা ওরগানিক অ্যালোভেরা জুস খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। শুরুতে এক চা চামচ করে খেয়ে শরীরের সঙ্গে মানিয়ে নিলে পরবর্তীতে এটি তিন চামচ করে খাওয়া যাবে। এর সঙ্গে একটু মধু যোগ করেও খেলে উপকার পাবেন।