জমজমাট আসর। উপস্থিত দেশ-বিদেশের বহু প্রতিযোগী। তবে অংশগ্রহণকারীরা মানুষ নয়, উট! তাদের নিয়েই সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের কাছে সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার আয়োজন। এই আয়োজন করতে মোট খরচ হবে ৬.৬ কোটি ডলার। তবে উটেদের প্রতিযোগিতাতেও কেউ এতটুকু ছাড় দিতে নারাজ। বরং জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে বোটক্স ইনজেকশন ও অন্যান্য কৃত্রিম উপায়ের আশ্রয় নিয়েছিলেন ৪৩টি উটের মালিক। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না।

কৃত্রিম কৌশল অবলম্বন করায় প্রতিযোগিতা থেকে বাতিল করা হল ওই ৪৩টি উটকে। প্রতিযোগিতার বিচারকরা জানিয়েছেন, কারচুপি ধরতে এ বছর অত্যাধুনিক প্রযুক্তির আশ্রয় নেওয়া হয়েছিল। তাতেই ধরা পড়েছে উট মালিকদের কৌশল।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, ডিসেম্বরেই শুরু হয়েছে এই প্রতিযোগিতা। চলবে ৪০ দিন ধরে। এই নিয়ে ষষ্ঠ বছরে পড়ল প্রতিযোগিতা। এতে রয়েছে ১৯টি বিভাগ। আরব দেশগুলির পাশাপাশি আমেরিকা, রাশিয়া, ফ্রান্স থেকেও প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন বহু উট মালিক।

জানা গেছে, বাতিল হওয়া ৪৩টি উটের ক্ষেত্রে বোটক্স ইনজেকশনের পাশাপাশি অন্যান্য কসমেটিক বদলও ঘটানো হয়েছিল, যাতে আরও আকর্ষক করে তোলা যায় উটগুলিকে। মূলত উটের মাথা, গলা, কুঁজ, পোশাক, হাঁটাচলার ওপর ভিত্তি করে বিজয়ী নির্ধারণ করেন বিচারকেরা।

এ বছর বিচারকদের নজরে আসে অনেক উটের ক্ষেত্রেই কৃত্রিম পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে। কারচুপি ধরার জন্য এক্স রে, থ্রিডি আলট্রাসাউন্ড মেশিনও ব্যবহার করা হয়। আয়োজকেরা জানিয়েছেন, শুধু বাতিল নয়, ওই উটের মালিকদের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ ও কড়া পদক্ষেপ করা হবে। বোটক্স বা হরমোন বদলের ইনজেকশন ব্যবহারের ক্ষেত্রে ক্ষতিপূরণের অঙ্ক উট পিছু ২৭ হাজার ডলার।