সব মানুষের নিজস্ব প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে। কোনও কারণে সেই প্রতিরোধ ব্যবস্থায় সমস্যা দেখা দিলে বহিঃপ্রকাশ হিসাবে অ্যালার্জি জাতীয় সমস্যা দেখা দেয়। এ কারণে প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিক রাখতে শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রয়োজনীয় ভিটামিন, পুষ্টি, খনিজ পদার্থের সরবরাহ প্রয়োজন। পুষ্টিবিদরা প্রতিরোধ শক্তি গড়ে তুলতে নিয়মিত খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে বলেন। শীতকালে অ্যালার্জির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ভরসা রাখতে পারেন এই পাঁচটি খাবারে। যেমন-

দই : দইয়ে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী অনেক ধরনের ব্যাকটেরিয়া থাকে। শরীরে তা গেলে ত্বকের বিভিন্ন সংক্রমণ রোধ করতে সাহায্য করে। দই সাধারণ প্রদাহ বিরোধী এবং অ্যান্টি-অ্যালার্জেটিক। একজিমা জাতীয় চর্মরোগ থেকে সুরক্ষিত থাকতে দই উপকারী।

ভিটামিন-সি যুক্ত ফল : কমলালেবু, স্ট্রবেরি, আপেল, তরমুজ হল ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল। প্রদাহবিরোধী ক্ষমতা থাকে এ সব ফলে। ত্বকের র‍্যাশ, চুলকানির মতো অ্যালার্জি জাতীয় সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে এসব ফল।

বায়োফ্ল্যাভনয়েড সমৃদ্ধ খাবার
: বায়োফ্লেভনয়েড এক বিশেষ ধরণের উপকারী রাসায়নিক উপাদান। ‌‌যা মূলত ফলে বা গাছের ছালে বেশি পরিমাণে থাকে। আপেল, পেঁয়াজ, চায়ের মতো বায়োফ্লেভনয়েড সমৃদ্ধ খাবার ত্বকের ফুসকুড়ি জাতীয় সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করে।

ম্যাগনেশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার
: বাদাম, কাজুবাদাম, কুমড়ার বীজ, কলার মতো ম্যাগনেশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার অ্যালার্জি কমাতে সাহায্য করে।

ভিটামিন-ই সমৃদ্ধ খাবার : কাঠবাদাম, চিনা বাদাম, সূর্যমুখীর বীজের মতো খাদ্যে গামা-টোকোফেরল থাকে, যা অ্যালার্জি সংঘটিত ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করে।