অনেকেরই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে। কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা থাকলে গ্যাস, পিঠে ব্যথা, ক্লান্তির মতো অন্যান্য শারীরিক সমস্যাও দেখা দেয়। সাধারণত ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হাইপো থাইরয়েড রোগীদের মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা বেশি দেখা যায়। অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অস্বাস্থ্যকর খাওয়াদাওয়ার কারণে মূলত কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা শুরু হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা কমাতে খাওয়াদাওয়ার প্রতি নজর দেওয়া প্রয়োজন। সেই সঙ্গে খাদ্যাভ্যাসে বদল আনাও জরুরি।

কিছু কিছু অভ্যাসের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা বাড়ে। যেমন-

ফাইবার জাতীয় খাবার না খেলে : ফল, সবজি, বাদাম, মুসুর ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়। কিন্তু অনেকের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকাতেও এই ধরনের খাবার সব সময় থাকে না। শরীরের একটি উপকারী উপাদান হল ফাইবার। শরীরে ফাইবারের পরিমাণ হ্রাস পেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। প্রতি দিন প্রায় ৩৮ গ্রাম ফাইবার খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর হবে।

প্রচুর পরিমাণে পানি না খেলে : ফাইবার সমৃদ্ধ খাওয়ার পাশাপাশি পানি খাওয়ার পরিমাণও বাড়াতে হবে। সারা দিনে কত পরিমাণ পানি খাচ্ছেন, তার উপর নির্ভর করে হজমশক্তি। শরীরে পানির পরিমাণ কম থাকলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে এক জন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের প্রতি দিন গড়ে প্রায় ৩-৪ লিটার পানি খাওয়া প্রয়োজন।

মৌসুমি ফল না খেলে
: শরীরে পানির ঘাটতি হলেই নানা শারীরিক সমস্যার শুরু হয়। এ কারণে পানি খাওয়ার পাশাপাশি, পানি জাতীয় ফল খাওয়াও সমান ভাবে জরুরি। ফলে ভিটামিন,ক্যালসিয়াম, ফাইবার, ম্যাগনেশিয়ামের মতো বিভিন্ন উপকারী পুষ্টিগুণ রয়েছে। শরীরের অন্যান্য সমস্যা দূর করার পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকেও দূরে রাখে ফল।