ঋতু বদলের পালায় এখন ঘন ঘন আবহাওয়ার পরিবর্তন হচ্ছে। কখনও দেখা যাচ্ছে প্রচণ্ড রোদ, কখনও আবার ঝরঝর করে বৃষ্টি পড়ছে। কাল। ফলে একদিকে ঠান্ডা-গরমের তারতম্য, অন্য দিকে প্রবল আর্দ্রতা দেখা দিচ্ছে। সব মিলিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই অবস্থায় শরীরের সুস্থতা রক্ষা করতে বাড়তি উদ্যোগ প্রয়োজন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন,এই সময়, বৃষ্টির পানি যত কম গায়ে লাগানো যায় ততই ভাল। এ কারণে সঙ্গে সবসময় ছাতা ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন তারা। ছাতা রোদ আর বৃষ্টি দুই-ই আটকাবে। কোনও ভাবে শরীর ভিজে গেল যত দ্রুত সম্ভব পোশাক বদলে ফেলতে হবে। মাথা ভিজে গেলে শুকনো কাপড় দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব মুছে নিতে হবে।

শুধু বৃষ্টির পানিই নয়, এই সময় নানা রকমের রোগ জীবাণুরও প্রকোপ শুরু হয়। তাই এই ধরনের রোগ জীবাণু থেকে বাঁচতে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এজন্য নিয়মিত হাত-পা ধোয়া কিংবা স্যানিটাইজার ব্যবহার করার পরামর্শও দিচ্ছেন তারা । বিশেষ করে শিশুদের নিয়ে অভিভাবকদের অতিরিক্ত সতর্ক থাকতে বলছেন তারা। তাদের ভাষায়, শিশুরা খেলাধুলা করবেই। কিন্তু অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে যেন তারা নোংরা পানি-ময়লা না ঘাটে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে কোনও ধরনের রোগব্যাধির মোকাবিলা করতে, সঠিক খাদ্যাভ্যাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পরিবেশে আর্দ্রতা বেশি থাকলে ঘামের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণ পানি শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। তাই এই সময় পর্যাপ্ত পানি পান করার পরামর্শ দিচ্ছেন তারা। এছাড়াও রাস্তাঘাটে কাটা ফল, শরবত খাওয়া থেকে বিরত থাকার কথাও বলছেন তারা।  

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় বাইরে বের হলে প্রয়োজনে দুই বোতল পানি নিতে হবে সঙ্গে। একটি বোতলে সাধারণ পানি ও অন্য বোতলে লবণ-চিনি মেশানো পানি নেওয়া যেতে পারে। নিয়মিত পানি পান করার পাশাপাশি, জোর করে প্রস্রাব চেপে না রাখার কথাও বলছেন তারা। এই সময় জ্বর, সর্দি-কাশি কিংবা পেটের সমস্যা দেখা দিলে,নিজে নিজে ওষুধ না খেয়ে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলেছেন বিশেষজ্ঞরা।