বিশ্ব জুড়ে ডায়াবেটিস আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ডায়াবেটিস মূলত দুই ধরনের টাইপ-১ ও টাইপ-২। টাইপ-১ ডায়াবেটিস হলে অগ্ন্যাশয় থেকে কম পরিমাণ ইনসুলিন উৎপন্ন হয়। ফলে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকে না। অন্যদিকে টাইপ-২ ডায়াবেটিস হলে দেহে পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি হয় না অথবা শরীর ইনসুলিন সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে পারে না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সময় মতো এই রোগ ধরা পড়লে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ অনেক সহজ হয়। অনেক সময় বিশেষ ধরনের কিছু ব্যথা চিনিয়ে দিতে পারে এই রোগ। যেমন-

উচ্চ রক্তচাপ ও স্নায়ুর ব্যথা
: রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলে দেখা দিতে পারে ‘ডায়াবিটিক নিউরোপ্যাথি’। এই সমস্যায় হাত ও পায়ের স্নায়ুগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলে এই স্নায়ুগুলির সঙ্গে যুক্ত রক্তবাহগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাতেই দেখা দেয় সমস্যা।

খোঁচা লাগার মতো ব্যথা: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলে কোনও একটি অঙ্গে সূচ ফোটার মতো অনুভূতি দেখা দিতে পারে। অনেক সময় ডায়াবেটিস থাকলে হাত-পায়ে ছুরিকাঘাতের মতো যন্ত্রণা দেখা দিতে পারে।

অন্যান্য ব্যথা: ডায়াবেটিস দেখা দিলে ক্ষত নিরাময় হতে অনেক বেশি সময় লাগে। ফলে আঘাত লাগলে সেই ক্ষত সারতে সময় লাগে অনেকটাই। অনেকিদন পর্যন্ত এই ব্যথা থাকতে পারে।