অনেকেই সোজা চুল পছন্দ করেন। সেক্ষেত্রে পার্লারে গিয়ে কেরাটিন, স্মুদনিং, স্ট্রেটনিং করিয়ে আসেন। এতে সাময়িকভাবে চুল দেখতে ভাল লাগলেও এগুলি করতে যে ক্রিম ব্যবহার হয়, সেগুলিতে বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদান থাকে। যা চুলের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। পার্লারে না গিয়ে ঘরোয়া উপায়েও চুল সোজা করা যায়। যেমন-

পাকা কলা ও টক দই : টক দই খুশকি দূর করতে সাহায্য করে আর পাকা কলা চুল নরম করে। পাকা কলা এবং দু’চামচ টক দই ব্লেন্ডারে দিয়ে মিশ্রণ বানিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ঘণ্টা খানেক রেখে দিন। মিশ্রণটি শুকিয়ে এলে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে ২-৩ দিন এটি ব্যবহার করুন। চুল মসৃণ ও সোজা হবে।

ডিম ও অলিভ অয়েল : ডিম এবং অলিভ অয়েল দুই-ই চুলের পুষ্টি জোগায়। দু’টি ডিমের কুসুম ও অলিভ অয়েল ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এ বার এই মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় ভাল করে লাগিয়ে কিছু ক্ষণ রেখে দিন। শুকিয়ে এলে শ্যাম্পু করে নিন। যাদের চুল খুব রুক্ষ চুল মসৃণ তারা কোমল করতে এই মিশ্রণটি সপ্তাহে ৩-৪ দিন ব্যবহার করুন।

মধু ও অ্যালোভেরা : চুলের যত্ন নিতে মধু ও অ্যালো ভেরার জুড়ি নেই। অ্যালো ভেরার জেলের সঙ্গে মধু মিশিয়ে সেই মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে কিছু ক্ষণ রেখে দিন। দুই ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে নিন। চুল কোমল ও মসৃণ করতে এক দিন পর পর এই মিশ্রণটি ব্যবহার করুন।