আজকাল সারাবছরই শশা পাওয়া যায়। শরীর ভালো রাখতে দারুণ উপকারী শসা। এই ফলে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি থাকায় এটি শরীরে পানির ঘাটতি পূরণ করে।

শশা শরীরকে ভিতর থেকে আর্দ্র রাখে। এতে ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং অন্যান্য ভিটামিন শরীর ঠান্ডা রাখতে দারুণ কাজ করে। তবে অনেকেই বুঝতে পারেন না শশার খোসা ছাড়িয়ে খাওয়া উচিত না কি খোসা-সহ। পুষ্টিবিদরা বলছেন, শশা এমনই একটি উপকারী ফল যার খোসাও অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর। বিশেষ করে কচি সবুজ শশা। কচি শশা খোসাসহ খেলে অনেক বেশি উপকার পাওয়া যায়। খোসা ছাড়িয়ে ফেললে খোসার সঙ্গে অনেক পুষ্টিগুণও চলে যায়।

শশা হজম করতে দারুণ সাহায্য করে। শশাতে ক্যালোরির পরিমাণ অনেক কম থাকায় এটি ওজন কমাতেও অত্যন্ত কার্যকরী। প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকায় শশা ক্যানসার, হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি কমায়। ক্যালোরি না থাকলেও শশাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ রয়েছে। শশার খোসা ছাড়িয়ে ফেললে এই পুষ্টিকর উপাদানগুলি শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে পৌঁছবে না। তাই খোসাসহ শশা শরীরের পক্ষে ভাল। তবে খোসাসহ শশা খাওয়ার আগে ভালো করে পরিষ্কার করে ধুয়ে নেওয়া প্রয়োজন। খোসায় অনেক সময় বিভিন্ন রাসায়নিক থাকে। সেগুলি পেটে গেলে সমস্যা হতে পারে।

বিষয় : শশা শশার পুষ্টিগুণ

মন্তব্য করুন