চাল এবং গম দুটিই শরীরের পুষ্টির জন্য অপরিহার্য। অনেকেই ভাত এবং রুটি একসঙ্গে খাওয়াকে স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো বলে মনে করেন। কিন্তু এই দুই খাবার একসঙ্গে খাওয়া যায় কিনা তা নিয়ে ভিন্ন মত আছে পুষ্টি বিশেষজ্ঞদের।

কারও কারও মতে ভাত এবং রুটি একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়। আবার কারও কারও ভাষায়,এই দুটি খাবার একসঙ্গে খাওয়া পুষ্টিকর।

একদল পুষ্টিবিদ বলছেন, দুটি খাবার একসঙ্গে রাখলে ক্ষতি নেই। প্রতিটি খাদ্য উপাদানের হজমের ভিন্ন হার রয়েছে যা খাদ্যের পুষ্টির উপর নির্ভর করে। গম এবং চাল দুটি খাবারেই  ক্যালরি প্রায় সমান থাকে। তবে এই দুই খাবারের মধ্যে ফাইবারের পার্থক্য রয়েছে। গম ফাইবার ধরে রাখে যা পরে শরীররক শর্করা মুক্ত করতে সাহায্য করে। অন্যদিকে চালে থাকা সাধারণ কার্বোহাইড্রেট শরীরে শর্করা বাড়ায়।

আবার আরেক দল পুষ্টিবিদ বলছেন,  এই দুটি খাবার একসঙ্গে মেশানো উচিত নয়। দু'টি শস্যের বিভিন্ন পুষ্টির বৈশিষ্ট্যের কারণে, পুষ্টিবিদরা একবারে শুধুমাত্র একটি শস্য খাওয়ার পরামর্শ দেন। তবে দুটি ভিন্ন শস্য খেতে গেলে অন্তত দুই ঘণ্টার ব্যবধান রাখতে হবে।

​দু'টি খাবার একসঙ্গে খেলে কী হয়?

পুষ্টিবিদরা বলছেন, উভয় শস্যের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট রয়েছে, এগুলি একসঙ্গে খেলে শরীরে স্টার্চ শোষণ করতে সাহায্য করে। যার ফলে বদহজমের পাশাপাশি শরীরে ফোলাভাবও দেখা দিতে পারে। তাই দুটি খাবার একসঙ্গে না রাখার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে,এই দুই খাবার একে অপরের পুষ্টি শোষণে বাধা সৃষ্টি করতে পারে।

ভাত-রুটি নিয়ে বিভিন্ন মতও রয়েছে। কেউ যদি একসঙ্গে ভাত-রুটি খেয়ে সুস্থ থাকে তাহলে খেতে পারেন। তবে সমস্যা হলে এই খাবার একসঙ্গে না খাওয়াই ভালো।