বর্ষায়  কখনও ভ্যাবসা গরম, কখনও আবার বৃষ্টি ঝরতেই থাকে। বৃষ্টি হলে চারিদকে ভিজে, স্যাঁতস্যাতে হয়ে যায়। এই মৌসুমে নানাধরনের রোগবালাই বাড়ে। বাড়িঘর অপরিস্কার থাকলেও রোগ জীবাণু ছড়ানোর আশঙ্কা থাকে। এ কারণে এ সময় বাড়িঘর সুরক্ষিত রাখা প্রয়োজন। এজন্য যা যা করা জরুরি-

১. বাড়িতে পাপোষ ব্যবহার করেন প্রায় সকলেই। বর্ষাকালে পাপোষের যত্ন নেওয়া আবশ্যক। তা না হলে পরিষ্কার থাকার পরিবর্তে বাড়ি অপরিষ্কারই হবে বেশি। তাই শুকাতে দেরি হবে এমন পাপোষ বৃষ্টির মৌসুমে ভুলে ব্যবহার করবেন না। পরিবর্তে সেগুলি প্লাস্টিকে মুড়ে তুলে রাখুন। কার্পেটের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম মেনে চলুন। তা না হলে বাড়িতে পোকামাকড়ের উপদ্রব হওয়াই স্বাভাবিক।

২. বর্ষা পোকামাকড়ের উপদ্রব বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই এই সময় বাড়ির নর্দমাগুলির দিকে বিশেষ নজর দিন। কোনওভাবে যাতে সেই সব জায়গা দিয়ে পোকামাকড় বাড়িতে ঢুকতে না পেরে, সে বিষয়ে নিশ্চিত হন।

৩. ভেজা ছাতা, ভেজা জুতা কোথায় রাখা হবে, তা নিয়ে অনেকেই সমস্যায় পড়েন । সেই সমস্যা যাতে না হয় সেজন্য এখনই বাড়ির বাইরে একটি তাকের ব্যবস্থা করুন। তাতেই ভিজা জুতা সাজিয়ে রাখুন । আর দেওয়ালে একটি পিনের বন্দোবস্ত করতে পারেন। সেখানে ভিজে ছাতা ঝুলিয়ে দিন। পানি ঝরে যাওয়ার পর বাড়ির ভিতরে ঢুকিয়ে নিন।

৪. আলমারিতে পোকামাকড়ের উপদ্রব ঠেতাতে আগেভাগেই লবঙ্গ ছড়িয়ে নিন। ন্যাপথলিন কিংবা নিমপাতাও ব্যবহার করতে পারেন। তাতে পোকামাকড়ের পাশাপাশি ভ্যাপসা গন্ধ থেকেও মিলতে পারে রেহাই।