রাতের খাবার শরীর ও স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেকেই রাতে বেশি খাবার খান। কেউ আবার রাতের খাবার এড়িয়ে যান। তাদের ধারণা. রাতে খাবার খেলে ওজন বেড়ে যায়। কিন্তু এর কোনোটাই ঠিক নয়। বরং রাতে কী খাচ্ছেন তার যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

কেউ কেউ রাতের খাবারে মাংস, মুরগির মাংস, দই এবং পরোটার মতো জিনিস খান, যা ঠিক নয়। আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে, রাতের খাবার হালকা হওয়া উচিত, তবে একই সঙ্গে এটি স্বাস্থ্যকরও হওয়া উচিত। পাশাপাশি কিছু খাবার এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। যেমন-

​গম
: আয়ুর্বেদে গমকে ভারী বলে মনে করা হয়। বলা হয়, এটি হজম হতে অনেক সময় লাগে। এই কারণেই রাতে গম এবং এর থেকে তৈরি খাদ্য পরিপাকতন্ত্রকে প্রভাবিত করতে পারে।

​দই: প্রায়ই দেখা যায়, রাতে অনেকেই দই খান। আয়ুর্বেদ অনুসারে, দই কফ ও পিত্ত বাড়ায়। এ কারণে রাতে দই খেলে কাশি, গলা ব্যথা, গলা ব্যথার মতো অনেক সমস্যা হতে পারে। এর পরিবর্তে বাটারমিল্ক খেতে পারেন।

​ময়দার তৈরি খাবার : ময়দাকে মিষ্টি বিষ বলা হয় কারণ এতে ফাইবার থাকে না এবং অতিরিক্ত সেবনে কোষ্ঠকাঠিন্য, পাইলসের মতো নানা সমস্যা হতে পারে। রাতে ময়দার তৈরি জিনিস হজম করাও কঠিন হয়ে পড়ে।

​মিষ্টি জাতীয় খাবার: অনেকেই আছেন যারা খাবারের পর মিষ্টি খেতে পছন্দ করেন। আজকাল সব ধরনের ডেজার্ট বা চকলেটই বেশি খাওয়া হয়। এগুলি ভারী আইটেম যা শরীরের পক্ষে হজম করা কঠিন পড়ে। এছাড়া রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গিয়ে  ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।