কমবেশি সবারই চুল পড়ার সমস্যা আছে। সাধারণত জীবনযাপন পদ্ধতি কিংবা আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণেই অত্যধিক চুল ঝরে। কিন্তু এই চুল পড়ার সমস্যা যদি মারাত্মক আকার নেয়, তাহলে বুঝতে হবে শরীরে অন্য কোনও রোগ বাসা বেঁধেছে। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেওয়ার পাশাপাশি চুলের স্বাস্থ্যের দিকেও নজর দেওয়া প্রয়োজন।

চুল পড়ার লক্ষণ অনেক সময়ই অন্য কোনও রোগে আক্রান্ত হওয়ার ইঙ্গিত দেয়। তাই চুল পড়ার সমস্যাকে একেবারেই হালকাভাবে না নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

কোন অসুখের কারণে অতিরিক্ত চুল পড়ে?

১. বর্তমান যুগে অনেক নারীরই পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের সমস্যা দেখা দিচ্ছে। হরমোনের ভারসাম্য বজায় না থাকার কারণেই মূলত এই সমস্যা দেখা দেয় বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের সমস্যা দেখা দিয়ে নারীদের মধ্যে অনিয়মিত পিরিয়ডের সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়াও অত্যধিক চুল পড়া, চুল রুক্ষ শুষ্ক নিষ্প্রাণ হয়ে যাওয়া এবং চুল পাতলা হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যাগুলোও দেখা দেয়। তাছাড়া এই অসুখে ওজন বেড়ে যাওয়ার সমস্যাও দেখা দেয়।

২. বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি অত্যধিক চুল পড়ার সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে থাইরয়েড পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া দরকার। কারণ, শরীরে যদি থাইরয়েডের সমস্যা থাকে, তাহলে চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চুল পড়তেও শুরু করে। এর পাশাপাশি স্মৃতিশক্তিতেও প্রভাব ফেলে থাইরয়েড।

৩. শ্যাম্পু করার সময় কি চুল পড়ার সমস্যা লক্ষ্য করছেন? তাহলে বুঝতে হবে শরীরে রক্তশূন্যতা হয়েছে। নারীদের মধ্যে রক্তশূন্যতার সমস্যা যেমন আজকার প্রায়ই দেখা যায়, তেমনি এর ফলে চুল পড়ার সমস্যাও দেখা দেয়।

৪. অত্যধিক হারে চুল পড়ার আরও একটা কারণ মানসিক চাপ বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই মানসিক চাপ থেকে বাঁচতে এবং চুল পড়া প্রতিরোধ করতে মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিন। মানসিক স্বাস্থ্য উন্নত করতে যোগাভ্যাস কিংবা মেডিটেশনও করতে পারেন।