দিনে দুই- তিনটি চোখের পাপড়ি পড়া স্বাভাবিক। কারও কারও আবার বেশিও পড়ে। এতে চোখ খালি খালি লাগে। তখন চোখ সাজালেও ভালো দেখায় না। কারণ চোখের সৌন্দর্য অনেকাংশই নির্ভর করে চোখের পাপড়ির উপর। চোখের পাপড়ি বড় হলে চোখ দেখতে আরও বেশি মায়াবী লাগে। অনেকে ঘন পাপড়ির জন্য নকল আইল্যাশের ওপর আস্থা রাখেন। তবে ঘন ঘন আইল্যাশ ব্যবহারও ঠিক নয়। সেক্ষেত্রে প্রাকৃতিক উপায়ে চোখের পাপড়ি ঘন করতে পারবেন।

চোখের পাপড়ি ঘন করবেন যেভাবে


ক্যাস্টর অয়েল :  এই তেলে রয়েছে ৯০ শতাংশ রিসিনোলিয়েক অ্যাসিড রয়েছে। এই অ্যাসিড পাপড়ি ঝরা থেকে প্রতিরোধ এবং পাপড়িকে ঘন করতে সাহায্য করে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন: এজন্য আপনার প্রয়োজন শুধুমাত্র টেবিল চামচ ক্যাস্টার ওয়েল ও পরিষ্কার তুলা। প্রথমে কোনো ক্লিনজার দিয়ে চোখের পাপড়ি পরিষ্কার করে ভালোভাবে শুকিয়ে নিন। তুলা ক্যাস্টার ওয়েলের মধ্যে চুবিয়ে সাবধানে চোখের উপরে ও নিচের পাপড়িতে লাগাতে হবে। চোখের ভেতরে যেন তেল না ঢুকে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। রাতে মেখে, সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন।

নারকেল তেল :   এটি পাপড়ি ঝরা থেকে রোধ করে পাপড়িকে ঘন করতে ও নতুন করে গজাতে সাহায্য করে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন: ক্যাস্টার ওয়েলের মতো একই উপায়ে নারকেল তেল পাপড়িতে প্রয়োগ করতে হবে।

ভ্যাসলিন ( প্যাট্রোলিয়াম জেলি ) :   ভ্যাসলিন চোখের পাতাকে মসৃণ  করে এবং পাপড়ি ঝরা থেকে বিরত রাখে। এটি পাপড়িকে ঘন ও বড় করতে সাহায্য করে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন:  প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে চোখের উপরে ও নিচের পাপড়িতে সাবধানে ভ্যাসলিন লাগিয়ে সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন।

ম্যাসাজ : তেল অথবা ভ্যাসলিন দিয়ে প্রতিদিন বা একদিন পরপর চোখের পাতায় ও পাপড়িতে আলতো করে ম্যাসেজ করুন। এতে আপনার চোখের পাপড়ি দ্রুত ঘন ও লম্বা হবে।

অলিভ অয়েল :  অলিভ অয়েলে অলিউরোপেইন নামক একটি ফেনোলিক যৌগ রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, অলিউরোপেইন চোখের পাপড়ি গজাতে ও ঘন করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন:  তুলার উপর ২/৩ ফোঁটা অলিভ ওয়েল নিয়ে চোখের উপর ও নিচের পাপড়িতে লাগান। এরপর হালকা ম্যাসেজ করে ৫/১০ মিনিট রেখে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

বিষয় : চোখের পাপড়ি ঘন পাপড়ি

মন্তব্য করুন