দাদার কোলে যাওয়া হলো না আলিফের

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

বাবা-মার কাছ থেকে দাদির সথে গ্রামের বাড়িতে ফিরছিল পাঁচ বছরের শিশু আলিফ। সড়কের এক পাশে গাড়ি থেকে নেমে অন্য পাশে অপেক্ষমাণ দাদার কোলে ছুটে যেতে চেয়েছিল অবুঝ আলিফ। কিন্তু ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে দাদা-দাদির সামনেই মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে শিশুটির। সোমবার ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে এ দুর্ঘটনা ঘটে।  

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের ভাসা গোকূলনগর গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে আমিনুল ইসলাম। আমিনুল তার স্ত্রী জ্যোতি আক্তারকে নিয়ে ঢাকায় পোশাক শ্রমিকের কাজ করেন। কয়েক দিন আগে আমিনুলকে দেখতে যান তার মা আয়শা আক্তার। ছেলের বাড়িতে বেড়ানোর পর আমিনুলের ৫ বছর বয়সী ছেলে আলিফ দাদির সাথে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার বায়না ধরে। সোমবার ভোরে ঢাকা থেকে ঈশ্বরগঞ্জ আসার জন্য বাসে উঠেন। ঈশ্বরগঞ্জ পৌর এলাকায় বাস থেকে নেমে ইজিবাইক দিয়ে নাতিকে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন আয়শা আক্তার। তাদের বাড়ি ফেরার সার্বক্ষণিক খবর নিচ্ছেলন আবদুল জব্বার। স্ত্রী ও নাতিকে এগিয়ে নিতে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের বটতলা বাজারে অপেক্ষা করছিলেন জব্বার। বেলা ১১ টার দিকে আয়শা আক্তার নাতি আলিফকে নিয়ে বটতলা বাজারে নামেন। রাস্তার অপর পাশে তখন দাঁড়িয়ে ছিল আবদুল জব্বার। আয়শা আক্তার ইজিবাইকের ভাড়া মেটাতে থাকার সুযোগে ব্যাকুল আলিফ দাদার কোলে ছুটে যেতে চায়। কিন্তু ময়মনসিংহগামী দ্রুত গতির একটি পাথরবোঝাই ট্রাক সবার চোখের সামনে পিষে দেয় আলিফকে। দাদা-দাদির চোখের সামনে আলিফ পিষ্ট হয়ে প্রাণ হারালে তাদের আহাজারিতে বাসাত ভারি হয়ে উঠে। চোখের সামনে নাতির মর্মান্তিক মৃত্যুতে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন দাদা-দাদি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার এসআই মারফত আলী বলেন, ঢাকা থেকে দাদির সাথে ফিরছিল আলিফ। রাস্তার এক পাশে ইজিবাইক থেকে নেমে অপর পাশে অপেক্ষমাণ দাদার কাছে ছুটে যেতে চাইলে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয় শিশুটি। মালবাহী ট্রাকটিকে জব্দ করা হয়েছে। নিহতের পরিবার বিনা ময়নাতদন্তে লাশ দাফনের অনুমতি চাওয়ায় লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।