হাত-পা দড়ি দিয়ে শক্ত করা বাঁধা শিশুটির। প্রচন্ড রোদের মধ্যে বাড়ির ছাদে শিশুটিকে ‘ফেলে রাখা’ হলো। পাঁচ বছরের শিশুটি সেই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চেষ্টা করতে থাকে। রোদে যখন শরীরের চামড়ায় জ্বালাপোড়া শুরু হয় শিশুটি তখন আর্তচিৎকার শুরু করে। অন্তত ভাইরাল হওয়া ভিডিওর বর্ণনায় এমনটাই বলেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। 

বুধবার ভিডিওটি ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়।ভিডিও দেখে দিল্লি পুলিশ ঘটনাটি কোথায় ঘটেছে এবং কেন ঘটেছে তা জানতে উদ্যোগ নেয়। পরে তারা জানতে পারে শিশুটিকে তার মা স্কুলের হোম ওয়ার্ক না করায় ওই শাস্তি দিয়েছে। 

প্রথমে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্টে বলা হয়েছিল, ভিডিওটি ২ জুন ধারণ করা এবং এটি দিল্লির করাওয়াল নগর এলাকার ঘটনা। তবে পুলিশ ওই এলাকায় এমন কোনো ঘটনার প্রমাণ পায়নি। পরবর্তীতে তারা জানতে পারে ভিডিওটি খাজুরি খাস এলাকার। পুলিশ যখন শিশুটির মাকে জিজ্ঞাসবাদ করে কেন এমনটা করেছেন তিনি, তখন ওই মা জানান, স্কুলের হোম ওয়ার্ক না করায় তিনি কেবল ৫-৭ মিনিট তার মেয়েকে ওই শাস্তি দিয়েছেন। 

২৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটি পার্শ্ববর্তী কোনো বাড়ি থেকে ধারণ করা হয়েছে। ভিডিওটির ব্যাকগ্রাউন্ডে এক নারীকে বলতে শোনা যায়, দুপুর ২টার দিকে প্রচন্ড তাপের মধ্যে শিশুটির মা শিশুটিকে হাত-পা বেঁধে ছাদে রেখে দিয়েছেন। 

পরবর্তীতে পুলিশের পক্ষ থেকে টুইট করে জানানো হয়, এই ঘটনায় উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে ঠিক কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে জানা যায়নি।